ওডেস্ক শেষ পর্বঃ কভার লেটারের গঠন ও সফল হওয়ার কিলার টিপস

ekram

বর্তমানে অনলাইন মার্কেটার হিসেবে কাজ করছি, ওয়েবডিজাইন এবং গ্রাফিকসটাও নিজের নেশা। আইটি প্রতিষ্ঠান, ন্যাশনাল আইটি ইন্সটিটিউট (https://www.facebook.com/nationalinst) এর সিইও । জেনেসিসব্লগসের প্রতিষ্ঠাতা অ্যাডমিন ।
টিউন করেছেন ekram | July 16, 2013 16:15 | পোস্টটি 1,787 বার দেখা হয়েছে

ওডেস্ক শেষ পর্বঃ কভার লেটারের গঠন ও সফল হওয়ার কিলার টিপস


আজকের শেষ পর্বটি কভার লেটার ও ওডেস্কের সফল হওয়ার অনেক গুরুত্বপূর্ণ কিছু তথ্য দিয়ে সাজালাম। অনেকদিনপর লিখতে বসলাম ওডেস্ক নিয়ে লেখার ধারাবাহিকটির শেষ পর্ব। ব্যস্ততার কারনে শেষ পর্বটি লিখতে দেরি হয়ে গেল। শুরু করা যাক।

যারা আগের পর্বগুলো পড়েননি, তাদের জন্য আগের দুটি পর্বের লিংকঃ

  • ১ম পর্বঃ http://genesisblogs.com/test/?p=79
  • ২য় পর্বঃ http://genesisblogs.com/test/?p=83

কোন একটি জবের বর্ণনা খুলে ডানপাশে পাবেন বায়ারের তথ্য। বায়ারের Payment Method Verified কিনা চেক করে নিন। যদি ভেরিফাইড হয়ে থাকে তাহলে Apply to this job নামের একটি বাটন আছে, সেখানে ক্লিক করুন। নতুন যে পেজ ওপেন হবে, সেখানে উপরে Paid to You-এর ডান পাশের বক্সে আপনি কত ডলারে কাজটি করতে চাচ্ছেন, সেটির পরিমান লিখুন । আর যদি ঘন্টাভিত্তিক কাজ হয়ে থাকে, তাহলে প্রতি ঘন্টাতে কত ডলারে কাজ করবেন, সেটা লিখতে হবে। Cover Letter  বক্সে। এখন প্রশ্ন হচ্ছে কভার লেটারটি কিভাবে লিখবেন?

কভার লেটার লিখার ক্ষেত্রে লক্ষণীয়

অনেকে অন্য বন্ধু যে খুব ভাল ইংরেজী পারে তাকে দিয়ে এটি লিখিয়ে নেয়, কিংবা অন্যের কভার লেটারকে নকল করে। ২টাই খুবই বিপদজনক। নিজের থেকেই লিখেন।

  • ক) খুব সুন্দর ইংরেজী ব্যবহার করে, বড় কোন কিছু লেখাকে ভাল কভার লেটার বলেনা।
  • খ) ক্লায়েন্টকে একদম পারলে একলাইনে লিখুন কাজটি পারবেন, তাহলে ক্লায়েন্ট খুশি হবে সবচাইতে বেশি। ক্লায়েন্টের সময়ের মূল্য আছে। বড় কভার লেটার দেখলে ভয়ে আর সেটা পড়বেনা ক্লায়েন্ট।
  • গ) মনে মনে নিজেকে ক্লায়েন্ট ভাবুন। এবার ভাবুন, আপনাকে কেউ কিভাবে বললে আপনি কাজটি টাকা খরচ করে করবেন।
  • ঘ) ক্লায়েন্টের কাছে ভিক্ষা চাওয়ার দরকার নাই। তাহলে ক্লায়েন্ট আপনার যোগ্যতা নিয়ে সন্দেহে পড়ে যাবে। কাজটি পারার ব্যাপারে কনফিডেন্ট প্রকাশ করুন।
  • ঙ) অন্যের কভার লেটার নিজে ব্যবহার করবেননা। আপনি ইংরেজী কম জানলেও না। কারন আপনি খুব ভাল কেউ ইংরেজী পারে এমন কাউকে দিয়ে হয়ত কভারলেটারটি লেখালেন্। ক্লায়েন্ট কাজ দেয়ার আগে আপনাকে ইন্টারভিউতে ডাকবে। তখন দেখল আপনার ইংরেজী লেখার ধরন অন্যরকম, তখন শুরুতেই আপনাকে ভন্ড ভেবে নিবে। সেজন্য কাজটি আর আপনি পাবেননা।
  • চ) নিজের একই কভার লেটারও বারবার ব্যবহার করবেননা। অর্থাৎ যা লিখবেন, লাইভ লিখবেন।
  • ছ) বেশি কথা না বলে আপনার কাজের স্যাম্পল দিন। এটি আপনার ৫০০০ লাইনের কথা বলার সমান কাজ করে দিবে।
  • জ) কভার লেটারে নিজের গুনগান গেয়ে কিংবা করুণা ভিক্ষা চেয়ে ক্লায়েন্টকে আকর্ষণ করার চেষ্টা করবেননা। প্রজেক্টটি ভালভাবে সে অনুযায়ি কভার লেটার তৈরি করুন।
  • ঝ) কখনো ভুলেও আপনার ইমেইল, স্কাইপ আইডি, ইয়াহু, এগুলো কাভার লেটারে দেওয়া যাবে না। ক্লায়েন্ট আপনাকে নক করলে শুধুমাত্র তখনি আপনার কন্টাক্ট ডিটেইলস তাকে দিবেন।

কভার লেটারের গঠনঃ

  • ক) স্যার বলে সম্বোধন করবেননা। এটি বাংলাদেশিরা পছন্দ করে, বিদেশিরা পছন্দ করেনা। Hi, Hello ব্যবহার করুন, সম্বোধনের ক্ষেত্রে।
  • খ) প্রজেক্টটি পড়ে আপনি যে ক্লায়েন্টের চাহিদা ভালভাবে বুঝেছেন, সেটি লেটারের প্রথমেই বোঝানোর জন্য কোন লাইন লিখতে পারেন।
  • গ) এবার বোঝানোর চেষ্টা করুন, আপনারে পক্ষে যে কাজটি করা সম্ভব।
  • ঘ) এ ধরনের কাজের ব্যপারে আপনার পূর্ব অভিজ্ঞতা উল্লেখ করুন।
  • ঙ) ক্লায়েন্টের রিপ্লাইয়ের জন্য আপনি অপেক্ষা করছেন, এ ধরনের কোন লাইন লিখুন।
  • চ) ধন্যবাদ সহকারে নিজের নাম উল্লেখ করে শেষ করেন লেটারটি।

অর্থাৎ এভাবে হবে লেটারটি।

“এই কাজ কোনো ব্যাপার না, আমি আগেও করেছি, এই দেখেন [লিংক] বা স্যাম্পল (এটাচ করা ফাইলে)”
শুধু এই লাইনটাই ইংরেজিতে লিখুন।

কভারলেটারের উদাহরণঃ

Hi,
I am interested to do your project. I can provide/collect you more than 000 facebook likes within 0 days. I have more than 0000 facebook friends and also have many facebook groups, page etc. So I think, I can do your project properly. I am waiting for your nice response.
Thanks
AR

কাজটিতে যদি বায়ারের বিশেষ রিকয়ারমেন্ট থাকে সেক্ষেত্রে রেট না কমিয়ে কাজের Sample বা পারফর্মেন্স দেখিয়ে বিড জেতার চেষ্টা করুন। অন্যদিকে যদি সহজ কাজ হয়, যেখানে আপনি বুঝতেই পারছেন বায়ার মূলতঃ কম বাজেটে কাজটি করাতে চাচ্ছে, সেক্ষেত্রে বিডের এমাউন্ট কমিয়ে দিন।

PMB (Private Message)  তে লেখার ২টি নমুনা প্রদত্ত হল।
যেমনঃ  I’m ready to work with your asking budget.
অথবা Please tell me your actual budget, i’m ready to work with cheap rate.

কাজ শুরু করুন

ঘণ্টাভিত্তিক কাজের ক্ষেত্রে www.odesk.com/downloads থেকে ওডেস্ক টিম সফটওয়্যারটি নামিয়ে নিন, পিসিতে ইন্সটল করুন। এবার কাজ শুরু আগে কাজটি সিলেক্ট করে Start-এ ক্লিক করুন। দেখতে পাবেন, কাজের সময় গণনা শুরু হয়ে গেছে। সফটওয়্যারটি কিছুক্ষণ পরপর আপনার কম্পিউটারের স্ক্রিণশট নিবে, সাথে সাথে সেটা আবার ক্লায়েন্টের কাছে পাঠিয়ে দিবে। কাজ শেষ হলে বায়ার যখন আপনাকে পেমেন্ট দিয়ে চুক্তি শেষ করবেন, তখন আপনার কাছে একটি নোটিফিকেশন আসবে BuyerName ended your contract ….। এবার বায়ার ফিডব্যাক দিবে, আপনাকেও দিতে হবে বায়ার সম্পর্কিত ফিডব্যাক। পূণমান ৫-এর মধ্যে এ ফিডব্যাক হয়।উভয় পক্ষ ফিডব্যাক দিলেই কেবল একজন অপরেরটা দেখতে পাবেন।

ভালো ফিডব্যাক পেলে পরবর্তীকালে বেশি কাজ পেতে সুবিধা হয়। বাজে ফিডব্যাক পেলে সেটি মুছে ফেলতে পারবেন। আপনি যদি বায়ারের পেমেন্ট ফেরত দিয়ে দেন, তাহলে আপনার প্রোফাইলে ওই বাজে ফিডব্যাক আর দেখা যাবে না। নোটিফিকেশন পেইজে Give refund-এ ক্লিক করে আপনি বায়ারকে পেমেন্ট ফেরত দিয়ে দিতে পারবেন। বায়ার আপনাকে পেমেন্ট দেওয়ার পর সেই পেমেন্ট এক সপ্তাহের মতো পেন্ডিং থেকে তারপর আপনার ওডেস্ক অ্যাকাউন্টে জমা হবে। আপনার বর্তমানে ব্যালান্স কত আছে এবং পেনডিং-এ কত আছে, সেটি জানার জন্য Transaction History-এ ক্লিক করুন।

ফ্রিল্যান্সে সফল হওয়ার জন্য গুরুত্বপূর্ণ পরামর্শ

  • ক) আপনার  প্রোফাইল ১০০%  করুন।
  • খ) আপনার প্রোফাইলে সুন্দর একটি Title এবং overview ঠিক করুন।
  • গ) আপনার Skills and Employment History ভালভাবে যুক্ত করুন।
  • ঘ) আপনার নিজের করা সেরা কাজগুলো (image + Link) যুক্ত করুন প্রোফাইলে।
  • ঙ)  আপনি প্রোফাইলে যেটিতে দক্ষ উল্লেখ করেছেন, সে ধরনের কাজগুলোতে বিড করুন। যেটি বিড করতে চাচ্ছেন, সেটি প্রোফাইলে না থাকলে কাজটি পাবেননা।
  • চ) কাউকে কপি করবেননা। প্রোফাইল তৈরিতেও না, কভার লেটার লিখার ক্ষেত্রেও না। নকল করার ক্ষেত্রে সাবধান। আপনার একাউন্ট পযন্ত বাদ হয়ে যেতে পারে।
  • জ) নতুন কাজে বিড করুন। ৪ থেকে ৫ জনকে ইতিমধ্যে ইন্টারভিউতে ডাকা হয়ে গেলে সেই কাজটি পাওয়ার সম্ভবনা খুবই ক্ষীণ।
  • ঝ) শুরুতে ছোট ছোট কাজ করে ফিডব্যাক সংগ্রহ করুন।
  • ঞ) কাজ পাওয়ার ক্ষেত্রে ইমোশনারলি ক্লায়েন্টকে আকর্ষণ করলে কাজ পাবেননা।
  • ট) বিডিং রেট বাজার রেটের চাইতে অস্বাভাবিক কমালে কাজ না পাওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকে, তাতে আপনার ব্যাপারে নেগেটিভ ধারনা পাবে।
  • ঠ) বিড শুরু করার আগে বায়ারের রেটিং, পেমেন্ট মেথড ভেরিফাইড কিনা চেক করে নিন।
  • ড) আপনার পোর্টফোলিও হালনাগাদ করুন।
  • ঢ) অবশ্যই আপনার স্কাইপ অ্যাকাউন্ট রেডি করুন।
  • ণ) ধৈয্য ও অধ্যাবসায় খুব জরুরী। একদিনে কাজ পাওয়ার আশা না করে চেষ্টা চালিয়ে যেতে হবে।

 

সকলে আমার জন্য দোয়া করবেন। আর উপরের টিউনটিটি ভাল লাগলে আপনার ফেসবুকে শেয়ার করতে ভুলবেননা। নাহলে অন্যরা লেখাটি সম্পর্কে জানতে পারবেনা। আপনার জন্য অন্য কারও উপকার হলে সারাজীবন আপনাআপনি দোয়া পাবেন।

  • Faruk

    Buyer interview ta kivabe ney, skype or phone call or online chat?

  • Eftekhar

    Thanks a lot. May Allah bless you ! Ekram vai.