ওয়েবসাইটের পেজ লোড টাইম কমিয়ে আনার কিছু টিপস

jahangir4csit

Hi, I am Jahangir Ahmed. I’m a web programmer & do job as a senior webdeveloper at creative IT Ltd.I found myself especially interested into the accessible we programming ever since I come to know about the W3C web standard (year 2010). Nowadays, I spend most of my free time in researching web design technologies.I am good in constructing standard compliance CSS website as well as interactive PHP and javascript application.
টিউন করেছেন jahangir4csit | April 19, 2014 23:24 | পোস্টটি 684 বার দেখা হয়েছে

ওয়েবসাইটের পেজ লোড টাইম কমিয়ে আনার কিছু টিপস


যদি কোন ওয়েবসাইট ওপেন হতে দেরি হয়, তাহলে সেই ওয়েবসাইটে ঢোকার আগ্রহ হারিয়ে ফেলি সবাই। আর একবার কষ্ট করে ঢুকলেও পরের বার যে আর সেই ওয়েবসাইটে প্রবেশের সম্ভাবনা কম থাকে। আর এটি সার্চ ইঞ্জিনের র‌্যাংকিংয়ের জন্যও অনেক গুরুত্বপূর্ণ। ওয়েবসাইটের গতি বৃদ্ধির করার জন্য কিছু টিপস এ পোস্টে দেওয়ার চেষ্টা করেছি।

 ওয়েবসাইটের বর্তমান গতি পরীক্ষা করুন

ওয়েবসাইটটি লোড হতে কত সময় লাগে , তা আগে নিজেই বের করে নেওয়া দরকার। এক্ষেত্রে কিছু ফ্রি টুলস পাওয়া যায় অনলাইনে। সেগুলোর সহযোগিতা নিয়ে খুব সহজেই এ বিষয়ে তথ্য বের করতে পারেন।

speed-up-wordpress-site

টুলসগুলোর নাম লিংক সহঃ

এ টুলসগুলো ব্যবহার করে ওয়েবসাইটের লোডিং টাইম জানার পাশাপাশি, এ সাইটের ধীরগতির কারণ ও জানতে পারবেন।

এবার চলুন দেখা যাক পেজের গতি বৃদ্ধি করার জন্য কোন কোন বিষয়ের প্রতি যত্নবান হতে হবেঃ

১) HTTP রিকুয়েস্টের সংখ্যা হ্রাস করা

  • CSS এবং JS ফাইলগুলোকে একত্রিত করা
  • ইমেজ স্প্রাইট ব্যবহার করা

২) ছবি অপটিমাইজ করা এবং সঠিকভাবে প্রদর্শন করা

 ফটোশপে ইমেজ অপটিমাইজ করার জন্য Ctrl+Shift+Alt+S শর্টকাট ব্যবহার করা হয়। ইমেজগুলো রিসাইজ করা হয়ে গেলে সেগুলোর ফাইল সাইজ আরো কমানোর জন্য বেশকিছু উপকারী টুলস যেমন, Smush.itPngcrush এবংImagemagick ব্যবহার করা যেতে পারে। GTmetrix এ সাইট এনালাইসিস করলে তারা নিজেরাই অপটিমাইজড ইমেজ প্রদান করে থাকে।

৩) Gzip কমপ্রেশন সক্রিয় করা

Gzip, ফাইল কম্প্রেশন এবং ডিকম্প্রেশনের জন্য ব্যবহৃত একটি সফটওয়্যার অ্যাপ্লিকেশন। এটি কেন ব্যবহার করবেন? সূত্রটি সহজঃ ছোট ফাইল = দ্রুততর ডাউনলোড = শুভ ব্যবহারকারী। পেজ কমপ্রেসড করা আছে কি না, তা online gzip test দ্বারা চেক করা যায়।

৪) CSS এবং JavaScript মিনিফাই করা

মিনিফাই করার মাধ্যমে কোড থেকে অপ্রয়োজনীয় ক্যারেক্টার অপসারণ করে এর সাইজ কমিয়ে পেজ লোড সময়ের উন্নতি করা সম্ভব। JSMin এবং YUI Compressor হলো জাভাস্ক্রিপ্ট মিনিফাই করার দুইটা জনপ্রিয় টুলস। YUI Compressor দ্বারা CSS ও মিনিফাই করা যায়।

৫) স্টাইলশীট তথ্যসূত্র পেজের শীর্ষে রাখা

স্টাইলশীট ডকুমেন্ট HEAD এ রাখলে ব্রাউজার পেজ লোডের শুরুতেই স্টাইলশীট পেয়ে যায়। ফলে যতটুকু অংশ লোড হয় ততটুকুই স্টাইল করা অনুযায়ী প্রদর্শিত হয়।

৬) স্ক্রিপ্ট তথ্যসূত্র পেজের সর্বনিম্নে রাখা

স্ক্রিপ্ট ডকুমেন্ট HEAD এ রাখলে, এটা পেজ লোডের শুরুতে এর নিচে যা কিছু আছে ব্লক করে রাখে। এতেকরে মনে হবে পেজ ধীরে লোড হচ্ছে। এই পরিস্থিতি এড়ানোর জন্য স্ক্রিপ্ট তথ্যসূত্রগুলোকে পেজের যথাসম্ভব নিচে রাখতে হবে, ভালো হয় যদি body ট্যাগ শেষের ঠিক আগে রাখা যায়।

৭) ব্রাউজারের ক্যাশ ব্যবহার করা

এ ব্যপারে বিস্তারিত লিখলাম না। গুগল ডেভেলপার ওয়েবসাইটের এই পেজে ব্রাউজার ক্যাশ সম্পর্কে বিস্তারিত বর্ণনা করা আছে।

৮) কনটেন্ট ডেলিভারি নেটওয়ার্ক ব্যবহার করা

কনটেন্ট ডেলিভারি নেটওয়ার্ক (CDN) হলো একাধিক অবস্থান জুড়ে পরিবেশিত ওয়েব সার্ভারের একটি সংকলন, যা ব্যবহারকারীদের কাছে কনটেন্টগুলো আরও দক্ষতার সাথে উপস্থাপন করে। পেজের বিষয়বস্তু বিভিন্ন সার্ভার থেকে লোড হবে, নির্ভর করবে ব্যবহারকারী কোন অঞ্চলে অবস্থান করছে তার উপর।

৯) @import ব্যবহার থেকে বিরত থাকা

মূল স্টাইলশীটে @import ব্যবহার করার পরিবর্তে বহিরাগত ফাইল হতে CSS কপি করা অথবা একাধিক link ট্যাগ ব্যবহার করা উচিত।

১০) একটি ক্যারেক্টার সেট নির্দিষ্ট করা

HTTP হেডারে একটি ক্যারেক্টার সেট নির্দিষ্ট করার মাধ্যমে ব্রাউজারের রেন্ডারিং গতি বাড়ানো সম্ভব।

শুধু ওয়েবসাইট ডিজাইন করলেই হবেনা, সেটি লোড হওয়ার গতির দিকেও নজর রাখতে হবে। না হলে এই ওয়েবসাইট ডেভেলপ করার মূল উদ্দেশ্যই নষ্ট হবে। উপরে উল্লেখিত বিষয়গুলো নজরে রাখলেই ওয়েবসাইটের পেজ লোডের গতি বৃদ্ধি করতে পারবেন, আশা করি।

 

  • Enamul haque

    good post for the web designer

  • http://www.tips4blog.com/ Md. Alam

    যেখান থেকে লেখাটি চুরি করছেন তার লিংকটাও দিয়ে দিতেন। মূল লেখককেও ক্রেডিট দেওয়া উচিত ছিল। চুরি করে ভালোই নিজের নামে চালিয়ে দিলেন!!!