প্রোফেসনাল লিংকডিন প্রোফাইল তৈরি করার ১৭টি টিপস

INDRAJIT DAS

আমি ইন্দ্রজিত দাস। বর্তমানে এসইও (সার্চ ইঞ্জিন অপ্টিমাইজেশন) নিয়ে কাজ করছি। প্রতিদিনই নতুন কিছ শেখার আগ্রহ থাকে মনে। ভালো লাগে কাজ করতে। ভাল লাগে ঘুরতে এবং গান শুনতে। আমার সাথে আড্ডা মারতে চলে আসুন ফেসবুকে। https://www.facebook.com/ijdasbd
টিউন করেছেন INDRAJIT DAS | July 12, 2015 08:17 | পোস্টটি 1,620 বার দেখা হয়েছে

লিংকডিন এর সুত্র মতে বর্তমানে এর ইউজার সংখ্যা প্রায় ২৫৯ মিলিয়ন, যা ২০০টি দেশে দিন দিন ব্যপক হারে বিস্তার লাভ কারেছে। LinkedIn বেশির ভাগ ক্ষেত্রে প্রফেশানালরা ব্যবহার করে থাকে তাই এটি প্রফেশনাল সোস্যাল মিডিয়া সাইট বলে জানে অনেকেই। ক্যারিয়ার/জব এর সর্ম্পক থাকে এবং তারা তাদের সার্ভিস এবং প্রফেশনাল দক্ষতাকে তুলে ধরতে পারে। লিংকডিন শুধু প্রফেশনাল সাইটই না এটা সামাজিক ও দক্ষতা বিকাশ/প্রকাশ করার জন্য অত্যন্ত গুরুত্বর্পূন ভূমিকা পালন করছে।

Screenshot_3

এবার আশুন জেনেনি প্রোফাইল তৈরি করার টিপস গুলোঃ

  • কিওয়ার্ড ব্যবহারঃ লিংকডিন প্রোফাইলে এমন কিওয়ার্ড ব্যবহার করুন যাতে কেউ দেখে বা র্সাস করে তার র্সাসের টপ রেজাল্টে আপনাকে খুঁজে পাওয়া যায় এবং যাতে আপনার দক্ষতা/পেশা অনুয়ায়ী কিওয়ার্ড হয়। কিওয়ার্ডটা যাতে সংক্ষিপ্ত ও স্মার্ট হয় এটা অত্যন্ত জরুরী আপনার প্রোফাইলের ক্ষেত্রে।

Screenshot_8

  • প্রোফেশনাল নামঃ লিংকডিন এ আপনি যে নাম ব্যবহার করবেন তা যেন প্রোফেশনাল হয়। কারন কোন বায়ার যদি তার কিওয়ার্ড দিয়ে র্সাস করে আপনার নাম পায় এবং তা যদি প্রোফেশনাল নাম না হয় তাহলে হায়ার করার সম্ভবনা কমে যায়।

Screenshot_1

  • প্রফেশনাল প্রোফাইল ইমেজ ব্যবহার করুনঃ এমন ইমেজ ব্যবহার করুন যাতে তা দেখলেই আপনার ব্যাক্তিত্ব/দক্ষতা ফুটে উঠে এবং আপনার সম্পর্কে কোন বাজে ধারনা যেন না হয় বায়ারের মনে। লিংক এর মতে প্রোফেশনাল ইমেজ ব্যবহার করে ৭গুন ব্যাক্তিত্ব ফুটিয়ে তোলা যায়। সুতারং এমন ইমেজ ব্যবহার করুন যাতে সেটা গ্রেড লুকিং হয়।

images2

  • অপটিমাইজ ইয়োর লোকেশনঃ বায়ার র্সাস করে প্রোফেশনাল এর মধ্য specific লোকেশন। আপনার লোকেশন যাতে specific হয় সে দিকে নজর দিন। ভলেও লোকেশন কখনো ফেক দিবেন না। তাহলে আপনার প্রতি খারাপ দৃষ্টি থাকবে রায়ারের।

Screenshot_2

  • প্রোফেশনাল হেডলাইনঃ আপনার লিঙ্কডিন প্রোফাইলের হেডলাইনটি অত্যন্ত জরুরী, কারণ হেডলাইন দেখেই কিন্তু আপনাকে অন্যরা খুঁজে নেবে। ১১০ অক্ষরের মধ্যে এমন একটি হেডলাইন ব্যবহার করুন যাতে সেটা টার্গেটেড হয়। হেডলাইনটা যাতে কমন ওর্য়াড দ্বারা লেখা হয় যেন বায়াররা খুব সহজেই খুজে পায়।

Screenshot_6

  1. তাই এমন হেডলাইন লিখুন, যা আপনার পেশা রিলেটেড
  2. অন্যদের কে আকৃষ্ট করবে সে ভাবে লিখুন।
  3. হেডলাইনটি হবে  সংক্ষিপ্ত, বর্ণনামূলক, প্রভাব বিস্তারকারী এবং অবশ্যই স্মার্ট।
  • পাবলিক প্রোফাইল ইউয়ারেলঃ আপনার প্রোফাইল ইউয়ারেলটা যাতে খুবই সিম্পল হয়। যেমন: https://bd.linkedin.com/in/ijdasbd  এটা আপনি কাস্টমাইজ করে নিবেন। যত এট্রাক্টিভ হয় তত সমৃদ্ধশীল।

Screenshot_3

  • ইন্ডাস্ট্রিজঃ আপনার ইন্ডাস্ট্রিজ সম্পর্কে খুবই সিম্পল চমৎকার ভাবে ধারনা দিবেন। যেন যে কেউ আপনার সর্ম্পকে সহজেই বুজে নিতে পারে।
  • র্তমান এবং অতীতের পেশাগত অবস্থানঃ আপনার হেডলাইন দেখে অন্যরা আপনার প্রোফাইলে এসে প্রথমেই দেখতে চাইবে আপনি বর্তমানে আপনি আপনার পেশার কোন পদে বা পজিশনে আছেন এবিং অতীতে কোথায় ছিলেন।  হেড লাইনে বর্ননামূলক কি অওার্ড দিয়ে প্রতিটা পজিশনের আপানি কী দায়িত্ব পালন করেছেন,ত আ উল্লেখ করুন  সুন্দর ও স্পষ্ট ভাবে ।

Screenshot_7

  • সামারী/এবাউট মিঃ এই সেকশনে আপনি আপনার সম্পর্কে লিখুন। কারণ বায়ার দেখবে আপনি কি জানেন বা বা তাদের কে কিভাবে সাহায্য করতে পারবেন। সুতরাং তাদের কথা মাথায় রেখে আপনি আপনার পারদর্শিতা এখানে উল্লেখ করুন। তবে হ্যাঁ, এক্সটা কথা না লিখাই ভালো।

Screenshot_9

  • বি এক্টিভিটিঃ প্রতি নিয়ত আপনি সুন্দর স্টাটাস দিন, এটা যেন আপনার জব রিলেটেড হয়। লিংকডিনে আপনি কতটুকু একটিভ আছেন এটা আপনার অনেক দরকারী সেকশন। এবং শুধু আপনি স্টাটাস দিলে হবে না অন্যর স্টাটাস-এ কমেন্ট করুন তাদের সাথে ডিসকাস করুন।
  • অভিজ্ঞতাঃ আপনি কোন কোন সেকশনে পারদর্শী তা উল্লেখ করুন। এবং সেটা যাতে আপনার টাইটেল ডেসক্রিপশন অনুযায়ী হয়। অভিজ্ঞতা অন্যান্য সোস্যাল মিডিয়াতে তেমন র্কাযকরী না ও হতে পারে কিন্তু লিংকডিন এর মত সোস্যাল মিডিয়াতে চাকরীর জন্য অনেক বড় গুরুত্বর্পূন ভূমিকা পালন করে। সুতারং অভিজ্ঞতা এমন ভাবে লিখবেন সেটা যাতে সহজলভ্ব হয়।

Screenshot_11

  • এডুকেশনঃ আপনি র্পূবে যে সকল সার্টিফিকেট অর্জন করেছেন সেই সকল সার্টিফিকেট লিংকডিন এ উপস্থাপন করুন। মনে রাখবেন আপনার যা নাই তা যদি উল্লেখ করেন তাহলে আপনিই নিজেকে নিজেই ঠকাবেন সুতারং খুব সাবধান।
  • যোগাযোগ ব্যবস্থাঃ আপনাকে যাতে যে কোন সময় যে কেউ কন্ট্রাকট করতে পারে সেই সব ব্যবস্থা রাখুন। বুঝতে পারছেন মানে আপনি যে সাইট গুলোতে বেশি এক্টিভ সেই সব নম্বর দিন যেমন:

    • মোবাইল নম্বর
    • ফেসবুক
    • টুইটার
    • গুগল প্লাস ইত্যাদি

indexs

  • পাস্ট সাবজেক্টঃ আপনার পূর্বে সকল বিষয় এখানে উল্লেখ করুন এবং তা নিস্বন্ধেহে। অনেকে মনে করেন যে তার পূর্বের বিষয় অন্যরা না জানাই ভাল এটা হচ্ছে তাদের আর একটা ভুল। মতে রাখবেন আজ যা বতর্মান আগামী কাল তা অতীত।
  • Specialties: আপনার টার্গেটেড মার্কেটে গ্রাহক শ্রেনী কিধরনের কীওয়ার্ড  সার্চ দিয়ে থাকে, সে গুলোর উপর বেশী ফোকাস করুন। এ গুলো সার্চ দিয়েই গ্রাহকরা আপনার অভিজ্ঞতা যাচাই-বাছাই করবে, দেখবে আপনি কীধরণের সার্ভিস প্রদান করবেন তাদেরকে।

ssimages

  • গুরুপ জয়েন্টঃ গ্রুপ্স এবং এসোসিয়েশন গুলো খুঁজে বের করুন এবং সেগুলোতে জয়েন করুন। তবে খেয়াল রাখবেন সেই গ্রুপ বা এসোসিয়েশন গুলো যেন আপনার পেশার সাথে রিলেটেড থাকে। এখানে জয়েন্ট করে আপনি আপনার ক্যারিয়ার কে ব্রান্ড হিসেবে নিতে পারবেন নেচের বিষয় গুলোকে জানুন:
  1. আপনার দক্ষতা অনুযায়ী নিজেই নিজের প্রফেশনাল ব্র্যান্ড/মার্কেট দাড় করাতে পারেন।
  2. আপনার জব ফিল্ডের সাথে কানেক্টটেড প্রফেশনালদের সাথে সংযুক্ত থেকে আপনি সহজেই ক্যারিয়ার পাথকে আরও সুদৃঢ় করতে পারেন।
  3. প্রফেশনাল‘রিলেশাশিপ’কে সহজেই ‘সুযোগে’ রুপান্তর করতে পারেন
  4. কোন কোম্পানি থেকে কোন সুযোগ আসলে এবং ওই কোম্পানির কেউ আপনার সাথে LinkedIn এ যুক্ত থাকলে সহজেই interview এবং এতদসংক্রান্ত বিষয়েঅবহিত হতে পারেন।

indexgg

  • Endorsements ঃ লিংকডিন-এ অনেক গুরুত্বর্পূন সেশন এর মধ্যে এটি একটি অন্যতম্য দিক হল ইনর্ডোসমেন্টস। ইনর্ডোসমেন্টস হল আপনি কোন বিষয়ে পারদর্শী/দক্ষ তা ইনর্ডোসমেন্টস দেখেই বায়াররা বুঝে নিতে পারবে। এটি আপনাকে দেবে আপনার প্রিয়জন/বন্দুবান্ধবরা। এটি আরেক ভাবে পাওয়া যায় তা‘হল অন্যকে আপনি দিন এবং তাদেরকে বলুন আপনাকে দেওয়ার জন্য। বুজতেই পারছেন এটি কত গুরূত্বর্পূন তাই এটি কিভাবে বাড়ানো যায় সেদিকে খেয়াল রাখেন।

টবহতimagese

 

 

  • Jmd Hossain

    Thank you very much to Share with us this topics.