আইফোনকে যত পরীক্ষায় পাস করতে হয়!

টিউন করেছেন Tanvir | October 4, 2014 11:47 | পোস্টটি 795 বার দেখা হয়েছে

আইফোনকে যত পরীক্ষায় পাস করতে হয়!


কিছু দিন আগেই অ্যাপেল এনেছে তাদের নতুন স্মার্টফোন iphone 6 এবং  iphone 6+ ।কিন্ত বাজারে আসার পরই অ্যাপেল এর বিরদ্ধে অভিযোগ আসে যে তাদের তৈরি ফোন iphone 6+  পেন্ট এর পকেটে রাখলে পকেটে চাপে বেকে যাচ্ছে।প্রযুক্তি জগতে স্মার্টফোন এর এই বাঁকা যাওয়ার নাম দেয়া হয়েছে “বেন্ডগেঁট”। অবশেষে আইফোন ৬ প্লাস বেঁকে যাচ্ছে—এ অভিযোগ পাওয়ার পর আইফোনকে যে পরীক্ষাগুলোতে পাস করে বাজারে আসতে হয়, সে সম্পর্কে সাংবাদিকদের তথ্য জানিয়েছে অ্যাপল কর্তৃপক্ষ। প্রযুক্তিবিষয়ক ওয়েবসাইট দ্য ভার্জ, রিকোড ও ওয়াল স্ট্রিট জার্নালের সাংবাদিকদের সামনে আইফোন পরীক্ষা করে দেখিয়েছে অ্যাপল কর্তৃপক্ষ।
অ্যাপল দাবি করেছে, সম্প্রতি বাজারে আনা আইফোন ৬ ও আইফোন৬ প্লাস হচ্ছে অ্যাপলের সবচেয়ে বেশিবার পরীক্ষা করে বাজারে ছাড়া স্মার্টফোন। প্রায় ১৫ হাজার ইউনিট আইফোনকে বিভিন্ন প্যারামিটারে প্রতিটি পরীক্ষার মধ্য দিয়ে যেতে হয়েছে। আইফোনকে যে পাঁচটি পরীক্ষায় অবশ্যই পাস করতে হয়, সেগুলো নিয়ে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে দ্য ভার্জ।

9183e2bd25d84e57ebf2cb3de5dd1ca0-iphone-2সিট টেস্ট
অ্যাপলের তৈরি আইফোনকে প্রথম যে পরীক্ষায় উতরে যেতে হয় তার নাম ‘সিট টেস্ট’। এই পরীক্ষায় কোনো আইফোন ব্যবহারকারী দুর্ঘটনাবশত হঠাৎ আইফোনের ওপর বসে পড়লে কী ধরনের ক্ষতি হয় তা দেখা হয়। এ পরীক্ষাটি তিনটি ধাপে করা হয়। প্যান্টের পেছনের পকেটে আইফোন রেখে শক্ত কোনো কিছুর ওপর বসে পড়তে হয় প্রথম ধাপে। দ্বিতীয় ধাপে কোচ বা কুশনের মতো কোথায় আইফোনের ওপর বসে পড়লে কী ক্ষতি হয় তা দেখা হয়। তৃতীয় ধাপে আইফোনকে যেভাবে পরীক্ষা করা হয় সেটিকে সবচেয়ে বাজে পরীক্ষা বলে দাবি করেছে রিকোড। এই ধাপে সুচালো কোনো শক্ত পৃষ্ঠের ওপর আইফোন ব্যবহারকারীকে বসতে হয়। অ্যাপলের হার্ডওয়্যার ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের ভাইস প্রেসিডেন্ট ড্যান রিকো দাবি করেছেন, এই পরীক্ষাগুলো হাজার হাজার বার করা হয়।

তিন পয়েন্টে বাঁকানো পরীক্ষা
এই পরীক্ষায় আইফোনের ওপর নির্দিষ্ট ওজন চাপিয়ে তা বাঁকা হয় কি না, তা পরীক্ষা করে দেখা হয়। এই পরীক্ষার সময় আইফোন বেঁকে যায় কি না, তা দেখতে ২৫ কেজি ওজনের একটি বার দিয়ে আইফোনের পেছনের দিকে মাঝ বরাবর চাপ দেওয়া হয়। এই পরীক্ষার সময় আইফোন যদিও কিছুটা বেঁকে যায়, তবে চাপ সরিয়ে নিলে আবার আগের অবস্থায় ফিরে আসে। অ্যাপলের কর্মকর্তা ড্যান রিকো বলেন, অনেক বেশি ওজন চাপালে শুধু আইফোন কেন এ পরীক্ষায় যেকোনো ফোনই স্থায়ীভাবে বেঁকে যাবে। অবশ্য একটি আইফোন সর্বোচ্চ কত ওজন সহ্য করতে পারে, সে তথ্য জানায়নি অ্যাপল কর্তৃপক্ষ।

প্রেশার পয়েন্ট পরীক্ষা
এই পরীক্ষার সময় আইফোনের কোনো দিক থেকে ধরে পেছন দিক থেকে মাঝ বরাবর যথেষ্ট চাপ দিয়ে আইফোনের চাপ সহনীয়তা পরীক্ষা করে দেখা হয়। সাংবাদিকদের সামনে ১০ কেজি চাপ দিয়ে পরীক্ষা করে দেখানো হয়েছে। বেঁকে গেলে আইফোন আবার চাপ দিয়ে সোজা করা যায় কি না, সেই পরীক্ষাও হাজার বার করা হয় বলেই অ্যাপলের দাবি।

মোচড়ানো পরীক্ষা
আইফোনকে দুদিক থেকে ধরে তা মোচড়ানোর চেষ্টা করা হয়। আইফোন টেকসই কি না, তা দেখতে বিভিন্ন কোণ থেকে প্রায় আট হাজার বার মুচড়িয়ে পরীক্ষা করে দেখা হয়। তবে কত ডিগ্রি কোণ থেকে এটি মোচড়ানো হয়, তা জানায়নি অ্যাপল।

ব্যবহারকারীকে দিয়ে পরীক্ষা করানো
এই পরীক্ষার সময় অ্যাপলের কর্মীদের কাছে আইফোনের সর্বোচ্চ ব্যবহার করার জন্য নতুন আইফোন দেওয়া হয়। প্রতিদিন ব্যবহারের ফলে এর পারফরম্যান্স, স্থায়িত্ব প্রভৃতি বিষয় পর্যবেক্ষণ করা হয়। কোনো বিষয় নজরে এলে তা নিয়ে আবার কাজ শুরু করে অ্যাপল।