বাংলায় অনূদিত বিদেশী ছোট গল্প – “অনূপ্রেরনার গল্প” (ভলিউমঃ ১)

Follow Me on

Mahdi Mehedi

Co-Founder at AndroPps.com | Bogra Online Shop
আমি আলাউদ্দিন আল-মাহদী a.k.a Mahdi Mehedi, একজন প্রফেশনাল সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটার এবং উদ্যোক্তা। ২ বছর এর বেশি সময় ধরে অনলাইন মার্কেটিং পেশার সাথে জড়িত। বর্তমানে ডেভসটিম ইন্সটিটিউটে জনসংযোগ কর্মকর্তা হিসেবে কর্মরত রয়েছি পাশাপাশি নিজস্ব অনলাইন বিজনেস পরিচালনা করছি। মাঝে মাঝে শখের বশে লেখালেখি করি বিশেষ করে সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং এর উপর লিখতে ভালবাসি এবং চেষ্টা করি তথ্যবহুল লেখা পাঠকদের উপহার দেওয়ার।
Follow Me on
টিউন করেছেন Mahdi Mehedi | August 29, 2015 06:14 | পোস্টটি 3,071 বার দেখা হয়েছে

OLYMPUS DIGITAL CAMERA

ভার্সিটিতে পড়ার সময় জীম এবং স্টিউ এর মাঝে খুব ভাল একটা বন্ধুত্বপূর্ন সম্পর্ক গড়ে উঠে। মজার ব্যাপার হল তারা যখন গ্রাজুয়েশন শেষ করে তার ঠিক কিছুদিন পরই বড় একটা সেলস কোম্পানিতে একসঙ্গে কাজ করার সুযোগ পায়। জীম এবং স্টিউ দুজনেই কোম্পানির জন্য প্রচুর পরিশ্রম করতো। জব পাওয়ার ঠিক ৩ বছর পর স্টিউ কোম্পানির সেলস এক্সিকিটিভ হিসেবে প্রমোশন পেল। কিন্তু জীমের কোন প্রমোশন হল না। জীম মনে করলো এটা সম্পূর্ন তার উপর অবিচার করা হয়েছে যেখানে সে কোম্পানির জন্য অনেক বেশি পরিশ্রম করে থাকে। তাই সে এই ব্যাপারটি তার বসকে জানালো। বস আগের থেকেই জানতো জীম খুব পরিশ্রমী কিন্তু কেন জীমের না হয়ে স্টিউর কেন প্রমোশন হল তা বুঝানোর জন্য তিনি জীমকে একটি ছোট কাজ করতে দিলেন। কাজটি হল জীম বাজারে গিয়ে খুজে দেখবে এমন কেউ আছে কিনা যিনি তরমুজ বিক্রি করে। জীম বাজার থেকে ফিরে আসার পর তার বস তাকে প্রতি কেজি তরমুজের দাম জিজ্ঞেস করলো। জীম আবার বাজারে গেল এবং ফিরে এসে জানালো প্রতি কেজি তরমুজের দাম ১২ ডলার।

এবার একই কাজ তিনি স্টিউকে দিলেন। স্টিউ বাজার থেকে এসে জানালো, বাজারে বর্তমানে একজন ব্যক্তিই তরমুজ বিক্রি করছে যার প্রতি কেজি তরমুজের দাম ১২ ডলার করে। এক সাথে ১০ কেজি নিলে ১০০ ডলারে নেওয়া যাবে। বর্তমানে তার স্টকে ৩৪০টি তরমুজ মজুদ আছে এবং বিক্রির জন্য টেবিলে সাজানো আছে ৪৮ টি তরমুজ যেগুলোর প্রত্যেকটির ওজন কমপক্ষে ১৫ কেজি। বিক্রেতা তরমুজগুলো ২ দিন আগে দক্ষিন অঞ্চল থেকে কিনে এনেছে। স্টিউ এর কাছে তরমুজগুলোকে অনেক ফ্রেস এবং ভালো মানের মনে হল।

স্টিউর রিপোর্টিং স্টাইল দেখে জীম টোটালি ইমপ্রেস হয়ে যায়। সে তখনই উপলব্ধি করে তার বন্ধুর থেকে আসলেই অনেক কিছুই শেখার আছে।

#মোরালঃ এবার আসি গল্পটি থেকে আমরা কি শিখলাম। ছোট এই গল্পটি আমাদের একটা গুরুত্বপূর্ন মেসেজ দিচ্ছে। সেটা হল সফল ব্যক্তিরা তাদের প্রত্যেকটা কাজে অন্যদের থেকে বেশি পর্যবেক্ষনশীল হয়। তাদের চিন্তাভাবনাটা শুধুমাত্র আগামীকালটাকে নিয়ে নয় বরং আরো সূদুরপ্রসারী। কিন্তু আমরা অনেকেই আগামীকালটাকে নিয়েই বেশি চিন্তাভাবনা করি, আর তাইতো সফল ব্যক্তিদের সাথে আমাদের এতো পার্থক্য!

চলবে…