এলইডিপি কোর্সে সফলদের মুখোমুখি (অতিথিঃ এস, এম, সিরাজুল মোস্তফা, চট্টগ্রাম)

টিউন করেছেন admin | May 12, 2017 08:37 | পোস্টটি 196 বার দেখা হয়েছে

এস, এম, সিরাজুল মোস্তফা চট্টগ্রামের সাউদার্ণ ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশের ভেন্যুতে লার্নিং এন্ড আর্নিং ডেভেলপমেন্ট প্রজেক্টের কোর্স সম্পন্ন করেছে। তার কোর্সের বিষয় ছিল, ওয়েব ডেভেলপমেন্টে এবং তার কোর্সের ট্রেইনার ছিল জ্যাকব নাথ। ২০১৬সালের ২৩নভেম্বরে শুরু হওয়া তার কোর্সটি সম্পন্ন হওয়ার আগেই সে ইনকাম শুরু করে। তার এখন পযন্ত ইনকাম ১০০০ডলারের মত। তার সাক্ষাৎকারে লার্নিং এন্ড আর্নিং কোর্স এবং তার সফলতার অনেক কিছুই উঠে এসেছে।

sirajul mostofa

প্রশ্নঃ১- আপনি কখন থেকে ফ্রিল্যান্সার হওয়ার স্বপ্ন দেখছেন? কেন ফ্রিল্যান্সার হতে আগ্রহী হলেন?
সিরাজুল মোস্তফাঃ আমার ইচ্ছে ছিল পড়া-লেখা শেষ করে চাকরি না করে নিজে কিছু একটা করবো সেই লক্ষে ডিগ্রি প্রথমবর্ষে আমার মায়ের মাধ্যমে একটি এনজিও কাছ থেকে ১০০০০/- ঋন নিয়ে মাত্র একটি পুরন কম্পিউটার দিয়ে ছোট একটি কম্পিউটার ট্রেনিং সেন্টার করি। অফিস প্রোগ্রাম শিখানো হতো। সেই থেকে নেশাও পেশা হিসাবে আইটি নিয়ে পথচলাও ফ্রিল্যান্সার প্রতি আগ্রহ। তাই বর্তমানে মাস্টাস ও এলএলবি শেষ করে আইন পেশা না গিয়ে আইটি এক্সপার্ট ও বড় ফ্রিল্যান্সার হওয়ার সপ্ন দেখছি।
প্রশ্নঃ২- আপনি কোন সাবজেক্টে কোর্স করেছেন, কেন এ সাবজেক্টটি বাছাই করেছেন?
সিরাজুল মোস্তফাঃ আমি ওয়েব ডিজাইন এন্ড ডেভলপমেন্ট সাবজেক্টে এ কোর্স করেছি এবং এ সাবজেক্টটি বাছাই কারন আমি যখন ২০১২ সালে আই আই ইউ সি থেকে এক বছরের কম্পিউটার ডিপ্লোমা কোর্স করেছিলাম তখন থেকেই ওয়েব পোগ্রামার হবার স্বপ্ন দেখেছিলাম
 প্রশ্নঃ৩-  কোর্স চলাকালীন কতদিনের মধ্যে এবং কত ইনকাম করতে পেরেছেন?
সিরাজুল মোস্তফাঃ আমি কোর্স চলাকালীন প্রথম মাসে ইনকাম করতে পেরেছিলাম এবং তখন $১০০ইনকাম করলাম
প্রশ্নঃ৪- এখন পযন্ত কত ইনকাম হয়েছে? কোন কোন সোর্স হতে এ ইনকামগুলো হয়েছে?

সিরাজুল মোস্তফাঃ এখন পযন্ত ১০০০ ডলারের মত ইনকাম হয়েছে মার্কেট প্লেস থেকে । এছাড়া বেশ কটি লোকাল ক্লায়েন্টের ওয়েব এর কাজ করেছি।

প্রশ্নঃ৫-  লার্নিং এন্ড আর্নিংয়ে কোর্স করার আগে ফ্রিল্যান্সিং বিষয়ে কতটুকু জ্ঞান ছিল?
সিরাজুল মোস্তফাঃ আমি আগেও মার্কেট প্লেসে ছোট ছোট কাজ (ডাটা এন্ট্রি সম্পর্কিত কাজ) করতাম কিন্তু সেটা একজন ফ্রিল্যান্সার হওয়ার জন্য যথেস্ট ছিল না । কোর্সে আমাদের ট্রেনার জেকুব নাথ স্যার ও ইকরাম স্যার বিশেষ সহায়তায় অনেক কিছু শিখলাম যা একজন সফল ফ্রিল্যান্সিং এর জন্য খুবই গুরুত্ব ছিল
প্রশ্নঃ৬- এত অল্প সময়ে সফল তার পিছনে বিশেষ কোন কারন থাকলে সেটি শেয়ার করুন।
সিরাজুল মোস্তফাঃ এত অল্প সময়ে সফল তার পিছনে বিশেষ কোন কারন হল আমার একান্ত চেষ্টা, আগ্রহ, প্রবল ইচ্ছা আর আমার বন্ধু জাভা প্রোগ্রামার মিসবা উদ্দিন, আমরা ভাই ফ্রান্স প্রবাসী গোলাম মোস্তফা, এবং আমার মা সহায়তা ও অনুপ্রেরনা। সেই সাথে ট্রেইনারের আন্তরিক সহযোগীতা না থাকলে কখনওই সম্ভব হতোনা।
প্রশ্নঃ৭-  ট্রেনিং শুরু করার আগে যা প্রত্যাশা করেছেন, বাস্তবতার সাথে প্রত্যাশার কতটুকু মিল খুজে পেয়েছেন?
সিরাজুল মোস্তফাঃ আসলে সত্যি বলতে আমি এর আগেও বিভিন্ন ট্রেনিং সেন্টারে কো্র্স করেছি তবে তার সাথে লার্নিং এন্ড আর্নিংয়ে কোর্স এর মান অনেক বেশি ছিল কারন এই কোর্সে আমি ওয়েব ডিজাইন এন্ড ডেভলপমেন্ট অনেক গুরুত্বপূর্ন অপশন শিখলাম যা আমি ট্রেনিং শুরু করার আগে যা প্রত্যাশা করিনি এবং কোর্স সমাপনী অনুষ্ঠানের বক্তব্যতে ও আমি একথা বলেছিলাম।
প্রশ্নঃ৮- সরকারী ট্রেনিংগুলোর ব্যাপারে সোশ্যাল মিডিয়াতে অনেক নেতিবাচক কথা শোনা যায়, সেগুলো কতটুকু সত্য?
সিরাজুল মোস্তফাঃ আসলে যারা সরকারি এইকোর্সটা করেনি তারাই নেতিবাচক মন্তব্য করছে যা বিন্দুমাত্র সঠিক নয়। আর যারা কোর্স করে সফল হয়েছেন তাদের দেখলে আশাকরি তাদের নেতিবাচক ধারনা দূর হবে।

প্রশ্নঃ৯-  ট্রেনিং সম্পর্কে বিশেষ কিছু কিংবা বিশেষ কোন মুহুর্ত পাঠকদের সাথে শেয়ার করতে পারেন।
সিরাজুল মোস্তফাঃ আমি ৫০ ক্লাস ২০০ ঘন্টা একদিন অনুপস্থিত থাকিনি কারন যেহেতু আমার ওয়েব প্রোগ্রামিং এর প্রতি অনেক আগ্রহ ছিল এবং আমাদের ট্রেনার জেকুব নাথ স্যার আমাদেরকে প্রতিদিনই নতুন কিছু শেখাতো যা পুরা কোর্সটি আমার কাছে বিশেষ মুহুর্ত ছিল।

প্রশ্নঃ১০- আপনার সফল তার জন্য আপনি কারও প্রতি কৃতজ্ঞ থাকলে এ সাক্ষাৎকারে কৃতজ্ঞতা জানাতে পারেন।
সিরাজুল মোস্তফাঃ আমি সর্বপ্রথম সরকারকে কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি যে, বিনামূল্যে এই প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করার জন্য। যে অনেক শিখতে চায় কিন্তু টাকার অভাবে শিখতে পারেনা তার জন্য কোর্সটি অনেক মুল্যবান যেমনটি ছিল আমার কাছে। আর আমাদেনর ট্রেনার জেকুব নাথ স্যার ও ইকরাম স্যারের কৃতজ্ঞতা জানায় কোর্স চলাকালিন ও কোর্স পরেও আমাকে সাপোর্ট দেয়ার জন্য।
প্রশ্নঃ১১- যারা কোর্স করেছেন, তারা সবাই এখনও সফল হয়নি।যারা এখনও সফল হয়নি, তাদের প্রতি আপনার কোন উপদেশ থাকলে সেটি বলতে পারেন।
সিরাজুল মোস্তফাঃ প্রতিযোগীতার বাজার, পরিশ্রম করতে হবে। পরিশ্রমের সাথে সাথে ধৈর্য্য ধরুন। অবশ্যই সফলতা আসবে

প্রশ্নঃ১২- ফ্রিল্যান্সিং নিয়ে আপনার ভবিষ্যত পরিকল্পনা কি?

সিরাজুল মোস্তফাঃ ফ্রিল্যান্সিং নিয়ে আমার ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা হলো আমি দক্ষ ওয়েব প্রোগ্রামার ও ফ্রিল্যান্সার হতে চাই এবং নতুন প্রজন্মকে ফ্রিল্যান্সিং শিখাতে চাই যাতে তারা চাকরি পিছনে না ঘুরে ফ্রিল্যান্সার হয় ।

বাংলাদেশ সরকারের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের লার্নিং  এন্ড আর্নিং প্রজেক্টের কোর্স করে যারা সফল হয়েছেন, তাদের গল্পগুলো জেনেসিসব্লগসের পাঠকদের জন্য এখন  থেকে নিয়মিত প্রকাশ করা হবে। সফলদের থেকে অনুপ্রেরণা নিয়ে অন্যরাও যাতে তাদের পরবর্তী পথকে সাজাতে পারে, সেই লক্ষ নিয়ে জেনেসিসব্লগস টীম কাজ করে যাচ্ছে।  আপনিও লার্নিং এন্ড আর্নিং প্রজেক্টের কারনে সফল হয়ে থাকলে আমাদের সাথে অফিসিয়াল ফেসবুক পেজের মাধ্যমে যোগাযোগ করতে পারেন।