জানতে হবে অনেক কিছু – ৪ (ভিডিও সহ)

ekram

বর্তমানে অনলাইন মার্কেটার হিসেবে কাজ করছি, ওয়েবডিজাইন এবং গ্রাফিকসটাও নিজের নেশা। আইটি প্রতিষ্ঠান, ন্যাশনাল আইটি ইন্সটিটিউট (https://www.facebook.com/nationalinst) এর সিইও । জেনেসিসব্লগসের প্রতিষ্ঠাতা অ্যাডমিন ।
টিউন করেছেন ekram | March 3, 2016 03:14 | পোস্টটি 1,609 বার দেখা হয়েছে

ফ্রিল্যান্সিং কিভাবে শিখবেন? শিখার ধাপগুলো নিয়ে জেনে নিন।


 আজকের পর্ব: ফ্রিল্যা্ন্সিং বিষয়ে কিভাবে দক্ষ হবেন? 

free

আগের পর্ব:

পর্ব ১: গ্রাফিক ডিজাইনকে ফ্রিল্যান্সিং ক্যারিয়ার হিসেবে বেছে নেওয়ার পক্ষে যুক্তি

পর্ব ২: এসইও কে ফ্রিল্যান্সিং ক্যারিয়ার হিসেবে বেছে নেওয়ার পক্ষে যুক্তি পর্ব

পর্ব  ৩: ওয়েবডিজাইনকে ফ্রিল্যান্সিং ক্যারিয়ার হিসেবে বেছে নেওয়ার পক্ষে যুক্তি

যেকোন কিছু শিখতে হলে ৩ধাপের সিড়ি পাড় হতে হয়। 

১ম ধাপ: বিষয়টি সম্পর্কে ভালভাবে ধারণা নেওয়া। যেটা কোন ট্রেনিং সেন্টার কিংবা স্কুল কলেজ থেকে শিখা হয়। এর বাইরেও অনলাইনে বিভিন্ন রিসোর্স থেকেও যেকোন বিষয় সম্পর্কে সম্পূর্ণ ধারণা নেওয়া সম্ভব।

এ ধাপে সময় ব্যয় করুন: ৪মাস।

২য় ধাপ: যা শিখেছি, সেটিকে এবার বাস্তব কোন প্রজেক্টে প্রয়োগ করে, নিজেকে দক্ষ করে তোলা। বাস্তবভিত্তিক প্রজেক্ট করতে গিয়েই মূলত কোন বিষয়ে সত্যিকারের দক্ষতা অর্জন সম্ভব।

এ ধাপে সময় ব্যয় করুন: ৩ মাস।

৩য় ধাপ: এবার দক্ষতাকে কাজে লাগিয়ে ক্যারিয়ার শুরু করা। মনে রাখবেন, বাজারে শুধুমাত্র দক্ষদেরই চাহিদা। কোথা থেকে শিখেছে, কি শিখেছে, সেটির কোন চাহিদা নাই। এ দক্ষতা বৃদ্ধির জন্য ২য় ধাপটি সারাজীবন চলতে থাকবে।

 ধাপগুলোর ক্রমান্বয়: ট্রেনিং গ্রহন> দক্ষতা অর্জন> ক্যারিয়ার শুরু

আমরা ১ম ধাপটি কষ্ট করে সম্পন্ন করেই তিন নাম্বারে চলে যেতে চাই। আর এ কারণে ক্যারিয়ার গঠন বা ইনকাম করতে ব্যর্থ হই। শুধুমাত্র মাঝের একটা সিড়িকে টপকিয়ে চলে যেতে চাওয়ার কারণেই মুখ থুবড়ে পড়ে সকল স্বপ্ন। অথচ মাঝের সেই সিড়িটাই সবচাইতে গুরুত্বপূর্ণ সিড়ি। মাঝের এ সিড়িটা টপকাতে কোন ট্রেনিং প্রতিষ্ঠান সাহায্য করবেনা। ট্রেনিং প্রতিষ্ঠানের কাজ ১ম ধাপেই শেষ হয়ে যায়। মাঝের সিড়ি টপকানোর চেষ্টাটা নিজেরই দায়িত্বের মধ্যে পড়ে।

  কিভাবে টপকাবেন সিড়ির এ মাঝের ধাপটি?

- নিজে কিছু ডেমো প্রজেক্ট করুন।

- অন্যদের প্রজেক্ট করে দিন ফ্রিতে।

- একই ধরনের প্রজেক্ট বারবার না করে, নতুন নতুন প্রজেক্ট করুন।

- কঠিন ও নতুন বিষয় কারও সহযোগিতা ছাড়া নিজেই সমাধান করুন।

- অনলাইন হতে প্রচুর রিসোর্স থেকে শিখতে প্রতিদিন সময় দিন।

– অভিজ্ঞ কারও টিমে যুক্ত থেকে শিখতে পারেন সহজেই।

ভিডিও লিংক:

 

  এ ধাপটি পার হওয়ার সময়টিতে কিছু সতর্কতা:

- হিরো হওয়ার মানুষিকতা নিয়ে শুভাকাংখী বনে যাওয়া সমাজের কিছু ব্যক্তি আপনাকে অন্যের উপর দোষারোপ করা শিখাবে। এদের কাছ থেকে সতর্ক থাকুন। মনে রাখবেন, নিজের ব্যর্থতার জন্য অন্যকে দোষারোপ করার অভ্যাসটি সমাজ আমাদেরকে শিখিয়ে দিচ্ছে, যা জীবনের সফলতার জন্য সবচাইতে বড় বাঁধা।

– দক্ষ হওয়ার আগেই টাকার লোভ আপনার সফলতার সম্ভাবনাকে অনেক দূরে ছুড়ে ফেলে দিবে। আগে দক্ষ হওয়ার চেষ্টা করেন, টাকা আপনার পিছনে দৌড়াবে। টাকার পিছনে আপনাকে কষ্ট করে দৌড়াতে হবেনা।

- অন্যের ইনকামের দিকে লোভ না করে তার পরিশ্রম করার শক্তিকে লোভ করুন। পরিকল্পিত পরিশ্রম ছাড়া কোনভাবেই সফল হওয়ার মিথ্যা স্বপ্ন দেখে লাভ নাই।

- এ ধাপটি অনেক চ্যালেঞ্জিং। এ চ্যালেঞ্জে সবচাইতে বড় শত্রু হচ্ছে হতাশা। সুতরাং হতাশ হওয়া যাবেনা। মনে রাখতে হবে, কেউ জন্মগতভাবে দক্ষ হয়ে পৃথিবীতে আসেনা। প্রচুর পরিশ্রম করেই দক্ষতা অর্জন করতে হয়। দক্ষতা অর্জনের পরেইতো রয়েছে বিশাল ক্যারিয়ার। সেটির কথা মনে করেই পরিশ্রম করুন।

– এ ধাপে কোন ধরনের বাধাকেই উছিলা হিসেবে দাড় করালে সব কিছুই শেষ হয়ে যাবে। সকল ধরনের বাধাকেই টপকানোর মত মানুষিক শক্তি এ ধাপে খুব প্রয়োজন। কারও সহযোগিতা না পেলে এটাকেও উছিলা হিসেবে দাড় করাবেননা, নিজের মত এগিয়ে যাবেন।

পরের পর্বের ভিডিওগুলোতে ২য় ধাপটি পার হওয়ার্ অর্থাৎ কোর্স শেষে নিজের দক্ষতা বৃদ্ধির জন্য প্রজেক্ট করার পরিকল্পণা সাজিয়ে নিয়ে আসব।

————————–————————–————————-

এ পোস্টটি অনেক বেশি শেয়ার করুন। কারন দেশের সবার জন্য কাজ করা আমার একার পক্ষে সম্ভবনা। অন্য অভিজ্ঞরাও যাতে এ পোস্টটি দেখে এবং নতুনদের জন্য সিড়ির ২য় ধাপটি পার করে দেওয়ার ব্যাপারে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেয়।

————————–————————–————————–