ইকমার্স উদ্যোক্তাদের সাক্ষাৎকার (অতিথি: জামিল হোসাইন, রাজশাহীর আম )

টিউন করেছেন admin | June 28, 2015 00:44 | পোস্টটি 2,467 বার দেখা হয়েছে

২০১৪ সালের আমের মৌসুমে জামিল হোসাইন সেজান  অনলাইনে শুরু করেন আমের ব্যবসা। নতুন এ আইডিয়া কতটুকু মানুষ গ্রহণ করবে ভয় ছিল শুরুতে। কিন্তু অনলাইনে সটিকভাবে মার্কেটিং করার কারনে বর্তমানে এটি বাংলাদেশে ইতিমধ্যে ব্যাপক পরিচিতি লাভ করেছে। আম বিক্রির এ ব্যবসার নাম ঠিক করেন “রাজশাহী আম”।  শুধুমাত্র ফেসবুক পেজ (https://www.facebook.com/RajshahirAmLTD) খুলে প্রচার শুরু করেন। তবে বর্তমানে নিজস্ব ওয়েবসাইট (http://www.RajshahirAm.com/) রয়েছে। অনলাইনে অর্ডার নিয়ে রাজশাহীতে নিজস্ব আম বাগান থেকে সরাসরি আম সংগ্রহ করে সেটি বাংলাদেশের বিভিন্ন প্রান্তে পাঠিয়ে থাকেন। তার দেখানো পথ ধরে ইতিমধ্যে অনেকেই শুরু করেছেন এ ব্যবসাটি। আজকে “রাজশাহী আম” এর CEO & Founder জামিল হোসাইন সেজানের সাথে আলাপচারিতায় উঠিয়ে আনার চেষ্টা করেছি এ অভিনব পরিকল্পনার পিছনের গল্প।

rajshahi mango

১) আপনার অনলাইন ভিক্তিক ব্যবসাটি কবে শুরু করেছেন? আপনার ব্যবসার ধরনটি সম্পর্কে কিছু বলুন।

সেজানঃ   সালটা ছিল ২০১৩ এর রোজার দিকে যখন আম প্রায় শেষের পথে।তখন ছিল আমের রাজা ফজলি আমের মৌসুম।একদিন বাসায় বেড়াতে আসলো এক ছোট ভাই।হাতে ছিল সুন্দর ভাবে প্যাক করা আমের দুইটা ঝুড়ি।এসেই বলল,জামিল ভাই আপনার জন্য নিয়ে এসেছি।হাতে পেয়ে দারুন খূশি হলাম।তখন মাথায় একটা আইডিয়া এসেছিল,যে এই ভাবে যদি গোটা বাংলাদেশে ক্যালসিয়াম কার্বাইড ও ফরমালিন মুক্ত রাজশাহীর আম সরবরাহ করা হয়।তাহলে কেমন হয় ? আর এটা যদি হয় অনলাইনে !!! ভাবলাম অনলাইনে আম কে নিবে ?? প্রচুর গবেষনা করলাম,কিভাবে কি কি করা যায়।যেমন ভাবা ঠিক তেমনি কাজ।ভাবলাম অনলাইনের বেশ গুরু টাইপ এর কিছু মানুষ জন কে আম পাঠায়,এতে তারা অনেক খূশি হবেন এবং প্রচার ও হবে সাথে অনলাইনে একটা সাপোর্ট ও পাবো,যাতে সব কিছুই ভালভাবে হয়। আমার সেই ছোট ভাইয়ের বাগান হতে প্রায় ৫-৬ মন আম কিনে এক যোগে সবাই কে পাঠায় দিলাম,প্রথমে আম পাঠালাম  Billah Mamun  ভাইকে, Taher Chowdhury Sumon   ভাইকে , Aowlad Hossain ভাইকে.এইভাবে মোটামুটি অনেক জনকে আমের গিফট পাঠালাম,আস্তে আস্তে এগুচ্ছি।সেইবার তেমন প্রস্তুতি ছিলনা।তাই ভাবলাম আগামী বছর এটার কাজ করবো।২০১৪ থেকে শরু করলাম ফুল কাজ । লোগো বানানো,টিম বানানো,সব কি কিছুই,কিভাবে কি করবো,ভেবেই পাচ্ছিলাম না। আল্লাহর নাম নিয়ে মাঠে নেমে পড়লাম ।

ব্যবসার ধরনটি সম্পর্কে  : ক্যালসিয়াম কার্বাইড ও ফরমালিন মুক্ত রাজশাহীর আম ।

২) বর্তমানের টিম মেম্বারদের (ফেসবুক আইডিসহ) সাথে সবাইকে পরিচয় করে দিবেন

সেজানঃ বর্তমানে ৫ প্রকার টিম মেম্বারে ভাগ করা হয়েছে :

ক.অফলাইন টিম মেম্বার

খ.কুরিয়ার সার্ভিস টিম মেম্বার

গ.অনলাইন টিম মেম্বার

ঘ.গ্রাফিক্স ডিজাইন টিম মেম্বার

ঙ.ফোন কল টিম মেম্বার

 

ক.অফলাইন টিম মেম্বার :

অফলাইন টিম মেম্বারদের সাধারনত ফেসবুক আইডি থাকেনা।এরা মুলত চাষী। এরা আম গাছ হতে আম পাড়ে, আম পাড়ার পর সেটা বাছাই করে,বাছাই করার পরে সেটা ভাল মানের ঝুড়িতে প্যাকিং করে,এর পরে সেটাকে গাড়িতে উঠিয়ে দিলে কাজ শেষ ।

এদের নাম : শরিফুল ইসলাম,মুজিবুর রহমান (বাগান হতে আম পাড়েন,)বাবু মন্ডল ( যার হাতেই হয় আমের যত প্যাকিং এর কেরামতি ),সালাউদ্দিন ( যিনি বারবার দেখেন যে ভাল আম ঠিক মত প্যাকিং হচ্ছে কিনা ),মেছের কাকা (আম বাগান পরিদর্শক)

খ.কুরিয়ার সার্ভিস টিম মেম্বার : 

কুরিয়ার সার্ভিস টিম মেম্বারদের কাজ হয় বেশ জটিল।ঘন্টার পর ঘন্টা লাইনে দাড়িয়ে মাল বুকিং দিয়ে থাকে । এটা সব চাইতে বেশি বিরক্তকর কাজ । যদি একবার বুকিং সিরিয়াল অফ হয়ে যায়,তাহলে সেইদিন আর বুকিং হয়না । ফলে আম গুলি অনেক নষ্ট হয়ে যেতে থাকে । তাই এই কাজে বেশ দক্ষ হতে হয় । এই কাজ করে থাকেন Ahmed Sanuar Hossain Sohel  -Junior CEO and Consultant At রাজশাহীর আম – Rajshahir Am) এবং Ismayeel Hossain

 

গ.অনলাইন টিম মেম্বার : অনলাইনে যাদের কাজ হচ্ছে মার্কেটিং,ক্রেতার সাথে যোগাযোগ সহ আরো অনেক রকম কাজ করা ইত্যাদি ।

১.মার্কেটিং ও ক্রেতার সাথে যোগাযোগ সহ  দ্বায়িত্বে   আছেন : Aynal Khan  -marketing manager At রাজশাহীর আম – Rajshahir Am)

২.ফেসবুক পোষ্ট বিজ্ঞাপনের দ্বায়িত্ব আছেন : Anik Tangeer Mehedi -Facebook adviser At রাজশাহীর আম – Rajshahir Am)

 

ঘ.গ্রাফিক্স ডিজাইন টিম মেম্বার : গ্রাফিক্স ডিজাইন টিম মেম্বারের দ্বায়িত্বে আছেন :

১. Towkir Ahmed Bappy  -Graphic designer At রাজশাহীর আম – Rajshahir Am )

অনেক সময় আমিও গ্রাফিক্স ডিজাইনের কাজ করে থাকি । এর সাথে সাথে marketing manager  Aynal Khan ও এই কাজ করে থাকেন ।

rajshahi

ঙ.ফোন কল টিম মেম্বার :

১.হ্যালো স্যার আমি রাজশাহীরআম.কম থেকে বলছি ?

২.হ্যালো স্যার আপনার রিসিভ মেমো নং টি লিখে নিন,আপনি ২ দিনের মাঝেই আম পেয়ে যাবেন ।

৩.হ্যালো স্যার আপনি কি আম পেয়েছেন ?

১.হ্যালো স্যার আমি রাজশাহীরআম.কম থেকে বলছি ?

এই কাজটি করেন :

Aynal Khan -marketing manager At রাজশাহীর আম – Rajshahir Am )

২.হ্যালো স্যার আপনার রিসিভ মেমো নং টি লিখে নিন,আপনি ২ দিনের মাঝেই আম পেয়ে যাবেন ।

এই কাজটি করেন :

Ahmed Sanuar Hossain Sohel-Junior CEO and Consultant At রাজশাহীর আম – Rajshahir Am)

( ২ দিন পরে) হ্যালো স্যার আমি রাজশাহীরআম.কম থেকে বলছি ?  আপনি কি আম পেয়েছেন ?

এই কাজটি করেন :

Ahmed Sanuar Hossain Sohel -Junior CEO and Consultant At রাজশাহীর আম – Rajshahir Am)

 

৩) শুরুর দিকের কিছু কথা সবার সাথে শেয়ার করার অনুরোধ করছি

সেজানঃশুরুর দিকটা বেশ ঝামেলার ছিল।শুরু করে দিলাম এর সাথে সাথে ঝামেলা আরো বেড়ে গেলো।অনলাইন আমের বিজনেসে সব করতে চাইলাম আর সব কিছু হয়ে গেলো,সেটা কিন্তু না । শুরুর দিকে সবার ই সাপোর্ট ছিল,সবাই নিজের মত করে কাজ করেছেন।শিপলু মামা ও আইনাল খান ভাই শুরুর দিকে এটার জন্য বেশ মার্কেটিং করে দিয়েছিলেন,মোটামুটি সবরকম অনলাইন সাপোর্ট পেয়ে কাজ গুলো করতে বেশ ভালই লেগেছে । শিপলু মামা,আইনাল ভাই,সোহেল হোসেন সহ সবাই বেশ এটার জন্য কাজ করে যাচ্ছেন,যেন ক্রেতারা ভাল কিছু পাই । গত বার সকালে আম ডেলিভারী যাবে প্রায় ২০ মন খানিক,এর মাঝে শুরু হলো সেই বৃষ্টি,চিন্তা শুরু হয়ে গেলো কিভাবে কি করবো,কারন আমরা আম ডেলিভারী বাগান থেকে আম পেড়ে দিই,দোয়া করতে লাগলাম কি করে কি করা যায়,১ মন আম না,প্রায় ২০ মন খানিক আম,প্রায় ২ ঘন্টা হয়ে গেলে,বৃষ্টি আস্তে আস্তে থামতে লাগলো,সেই দিন শুধুমাত্র ডেলিভারী দেবার জন্য প্রায় ৫-৬ জন লোক এক্সট্রা ভাবে নিলাম,আমি্ও তাদের সাথে বাগানে আম পাড়েতে শুরু করলাম,হঠাৎ চোখে পড়লো আমের আঠা,সাথে চোখ ভিষন জ্বলতে লাগলো,সেই জ্বলা শুরু আর থামা নেই……..

  

৪) কত পূজি নিয়ে ব্যবসাটি শুরু করেছেন?

সেজানঃ: মোটামুটি ৩০-৪০ হাজার টাকা নিয়ে শুরু করে ছিলাম,ছোট ছোট কিছূ বাগান কিনতে হয়েছিল,আমাদের রাজশাহীর আম .কম এর লোগা বানানোর খরচ,বিজ্ঞাপন খরচ সহ আরো কিছু টাকা খরচ হয়েছিল । তবে যে কেউ খুব অল্প পুজিতে এই কাজ শুরু করতে পারেন ।

৫) ব্যবসার সফলতার প্রধান কাজ প্রচার এ প্রচারের কাজটি কিভাবে করছেন?

সেজানঃ ব্যবসাটা শুরুর দিকে অনলাইনের সকল প্রকার বন্ধুর সহযোগীতা পেয়েছিলাম,সবাইকে অনুরোধ করেছিলাম,যেন সবাই একটু একটু আমাদের এই কায্যক্রমের ব্যপারে সবাইকে একটু জানিয়ে দেন,এবং সবার ই সহযোগীতা পেয়েছিলাম,তাহের চৈাধুরী সুমন ভাই বেশ টিপস্ দিয়েছিলেন,শিপলু মামা নিজ অন্তর দিয়ে এটার জন্য প্রচার করেছিলেন,এছাড়া আমাদের আইনাল ভাই তো আছেন,যিনি আমাদের রাজশাহীর আমের মার্কেটিং ম্যানেজার । ওয়েব সাইট,ফেসবুক গ্রুপ,ও স্পনসর পোষ্টের মাধ্যমে এই সব প্রচার করা হয়েছে ।

 

৬) এ ব্যবসাটি পরিচালনা করতে প্রতিদিন কিরকম সময় ব্যয় করতে হয়?

সেজানঃ ব্যবসাটি পরিচালনা করতে প্রতিদিন গড়ে প্রতিদিন ১০ থেকে ১২ ঘন্টা সময় ব্যায় হতো,কারন কোয়ালিটির ব্যাপারে আমাদের ছাড় নাই,কোয়ালিটিফুল জিনিস দিবো,সবাই এমনিতেই ভালবাসবে । ভালো আমের বাগান পর্যবেক্ষন করা,আম পরিক্ষা করা সহ নানা রকম কাজ করা হতো,যেন ভাল আম ই আমাদের ক্রেতারা খেতে পারেন ।

 

৭) ব্যবসাটি পরিচালনা করতে সার্বিক কাজের তালিকাটি সবাইকে জানাতে চাচ্ছি

সেজানঃ ১.প্রথমে প্রচুর প্রচার করতে হয়,এর জন্য গ্রাফিক্সের কাজ করতে হয় প্রায় ঘন্টা দুয়েক,এর পর গ্রাফিক্সের কাজ গুলো নিয়ে আমাদের পেইজে মার্কেটিং করতে হয় ।

২.ক্রেতারা আমাদের শিপিং তারিখ দেখে  আমের চাহিদা অনুযায়ী অর্ডার ফর্ম থেকে আমাদের অর্ডার দিয়ে থাকেন ।

৩.গুগর অর্ডার সিট হতে অর্ডার কালেক্ট করে,সেটাকে আমরা প্রিন্ট করে থাকি ।

৪.এর পরে ক্রেতার অর্ডার প্রিন্ট সিট অনুযায়ী আমরা আম বাগান হতে আম সংগ্রহ করে থাকি ।

৫.আম গুলো আগে থেকে চেক করা হয়,কোথা্ও কোন ভূল হচ্ছে কিনা। সব কিছু চেক করার পরে আম গাছ হতে আম পেড়ে সেই গুলোকে ভালভাবে বাছায় করে ভাল ভাবে প্যাকিং করে নিয়ে যেতে হয় ৪৫ কিলোমিটার রাজশাহীর মেইন শহরের কুরিয়ার সার্ভিসে,সেখানে আমাদের প্রতিনিধিরা লাইনে দাড়িয়ে সেই গুলো কুরিয়ার করেন ( সব চাইতে কষ্টের কাজ ) ।

৬.এর পরে ফোন কল টিম মেম্বারা ক্রেতাদের কল করে কুরিয়ার রিসিভ মেমো জানিয়ে দেন ।২ দিন পরে আবারো ফোন দে্ওয়া হয়,যে আপনারা আম পাইছেন কিনা ? পরে আবারো ফোন করা হয়,আম গুলোন কেমন লেগেছে । সবশেষে অভিযোগ সুনতে হয় ।এই ভাবেই চলে আমাদের কাজের তালিকা ।

৮) ব্যবসাটি পরিচালনা করতে কি কি সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছেন?

সেজানঃব্যবসাটি পরিচালনা করতে নানা রকম সমস্যার সম্মুখীন হয়েছিলাম : ১.অতিবৃষ্টি ( মাঝে মাঝে অতিবৃষ্টির কারনে আমাদের আম ডেলিভারী বন্ধ রাখতাম,যার ফলে অনেক আম নষ্ট হয়ে যেতো ২.কুরিয়ার সার্ভিসের অব্যস্থাপনা (কুরিয়ার সার্ভিসের অব্যস্থাপনার জন্য আমাদের ডেলিভারীতে একটু সময় নিতো,যেটার জন্য ক্রেতারা আমাদের উপর রাগ করতো   ৩.যোগাযোগ ব্যবস্থা (আম বাগান থেকে আম নিয়ে যাবার রাস্তা ছিল বড়ই ভয়ানক,বৃষ্টি হলেতো আর কথা নাই ।)অনেক সময় আম বাগান হতে প্যাকিং করা আম কুরিয়ার সার্ভিস পর্যন্ত নিয়ে যেতে কোন রকম গাড়ি পেতাম না,অনেক সময় ভাংগা রাস্তার কারনে কেউ গাড়ি নিয়ে যেতে চাইতোনা । অনেক সময় লোক রেখে মাথায় করে এই গুলো আনাতাম । যাই হোক যখন শুনি কাস্টোমার আমাদের আমের প্রসংশা করেছেন,ঠিক তখন ই আমরা এই সব ভূলে যেতাম ।

jamil vai

৯) বাজারে গিয়ে না কিনে আপনার কাছ থেকেই কেন কিনবে, সেটি অল্প কথাতে উল্লেখ করুন

সেজানঃ কারন আমরা আপনাকে সব ধরনের সেবা দিতে প্রস্তুত । আমের অর্ডার থেকে শুরু করে আম খা্ওয়া পর্যন্ত আমরা আপনাকে ট্রাক করবো । আমের ব্যাপারে কোন অভিযোগ থাকলে আমরা আবারো সেই পরিমান আম পাঠিয়ে দিবো । যেটা আপনি খোলা বাজার হতে এই সার্ভিস পাবেন না । যা্ আপনাকে আমরা দিবো ।আমরা এখানে ভাল জিনিস খা্ওয়াতে এসেছি ।

১০) যাদের সহযোগিতা পাচ্ছেন, তাদেরকে এ সাক্ষাৎকারের মাধ্যমে ধন্যবাদ দিতে পারেন

সেজানঃধন্যবাদ : আ্ওলাড হোসেন জয় ভাই,শিপলু মামা,আইনাল ভাই,আমিনুর ইসলাম,Ahmed Sanuar Hossain Sohel,Taher Chowdhury Sumon , Billah Mamun,নিলআকাশ,ইয়াসিনমামা,Towkir Ahmed Bappy,Abu Bakar Siddique Vai,Anik Tangeer Mehedi,Md Rubel Ahmed,Saiful Islam(Amargadget.com),Abdul Malek Vai,Sariful Islam,Mahbub Alam,Shahrana Wahed,

১১) নতুনরা অনলাইন ভিত্তিক ব্যবসা শুরু করতে চাইলে কি কি প্রস্তুতি নিতে পরামর্শ দিবেন?

সেজানঃ নতুনরা এই অনলাইন ভিত্তিক ব্যবসাতে আসতে হলে,অনলাইনে ভালভাবে পরিচিতি লাভ করতে হবে,যেন সবাই এটাকে বিশ্বাস করেন । এখানে বিশ্বাস করাটা মেইন ব্যপার । সব কাজ গুছিয়ে নিতে হবে,কার কোন কাজ,কে কিভাবে করবে সেটা উল্যেখ করতে হবে । কখন্ও ব্যাংক থেকে লোন নেওয়া উচিৎ হবেনা,যেহেতেু এটাতে পুজি কম লাগে,তাই ভেবে চিন্তে লোনের ব্যপারে এগুবেন । আল্লাহর নাম নিয়ে মাঠে নেমে পড়েন,কাজ হবেই ।।।।

১২) ইকমার্স ব্যবসার প্রসারে সরকারের কাছে কি সহযোগিতা প্রত্যাশা করেন?

সেজানঃ ইকমার্স ব্যবসার প্রসারে সরকারের কাছে একটাই আবেদন,অন্তত সব জায়গাতে কুরিয়ার ব্যবস্থাপনা ভাল করা,যখন যেটার সময় ঠিক তখন সেটার ব্যপারে আগ্রহ প্রকাশ করা । কুরিয়ার সার্ভিস ভাল হলেই সব কিছুই হবে,আর এটার সাথে ছোট ছোট সকল প্রকার ইকার্সকে সরকার থেকে অনুমোদন প্রদান করা,যেন সকল ক্রেতা এটাকে পজেটিভ ভাবেন । এছাড়াএই খাতকে সম্পুর্ন জিরো ভ্যাটের আ্ওতায় আনার জন্য সরকার কে অনুরোধ জানাচ্ছি । সম্ভাবনাময় এই খাতটি কেবল মাত্র শুরু হতে যাচ্ছে,সব চাইতে বড় বাধা হলো ইকমার্স সাইট কে এখন পর্যন্ত অনেক মানুষ বিস্বাস করতে চাইনা,তার উপরে যদি বাজারের ভ্যাটের চাইতে এখানে বেশি ভ্যাট  নেওয়া হয়,তাহলে মানুষের সেই বিস্বাস টুকু আর থাকবেনা । ক্রেতারা পণ্য কিনতে আগ্রহ হারিয়ে ফেলবে ।

 

জেনেসিসব্লগসের পক্ষ হতে বাংলাদেশে যারা ইকমার্স ব্যবসা করছেন, তাদেরকে সবার সাথে পরিচিত করে দেওয়ার জন্য নিয়মিত এ আয়োজনটি শুরু হলো।  আশা করি এ আয়োজনটি নতুন নতুন আরো উদ্যোক্তা তৈরিতে যেমন সাহায্য করবে,  তেমনি যারা  ইকমার্স ব্যবসা করছেন, সেগুলো কে সবার সামনে পরিচিত করতে সাহায্য করবে। বাংলাদেশে ইকমার্স ব্যবসার প্রসারে জেনেসিসব্লগসের এ উদ্যোক্টির পাশে থাকার জন্য সবাইকে অনুরোধ করছি।

নতুন কোন উদ্যোক্তা সাক্ষাৎকার দিতে চাইলে এ ফরমটি ডাউনলোড করে নিন, পূরন করে নির্দিষ্ট মেইলে পাঠিয়ে দিন। সাক্ষাৎকার ফরম লিংক

 

  • Shuvo

    জামিল ভাই এগিয়ে জান

    • Zamil Hossain Sezan

      Thanks vaia