এসইও কোর্স সম্পন্ন করার পর সাথে সাথেই অনেকে কাজ শুরু করতে পারেনা। আয় শুরু করতে পারেনা। কারণ কোর্সের ভিতর প্রচুর বিষয় শিখানো হয়, শেষ পযন্ত কোন বিষয় করবে, কিভাবে করবে সব কিছু নিয়েই হয়ত হতাশা তৈরি হয়ে যায়। সেই সব নতুনদের জন্য মূলত আজকের এ পোস্টটি লিখতেছি। এ পোস্টটি পড়ে কোর্সে যা যা শিখেছেন, সব প্রাকটিস শুরু করতে পারবেন, এবং শর্ট টাইমে আয় শুরু করতে পারবেন। তাছাড়া যারা মার্কেটপ্লেসে এসইও সম্পর্কিত কাজ পাচ্ছেননা, তাদের জন্য এ পোস্টটি অবশ্যই অনেক কাযকরী হবে।

SEO_Training
এসইও শিখেই সবচাইতে বেশি অনলাইনে আয় করা সম্ভব হওয়ার পরও এসইও কোর্স সম্পন্নকারীদের মধ্য থেকে অনেকেই বেকার থাকে এবং হতাশ থাকে। বিষয়টি নিয়ে নিজে কিছু কিছু কারণ খুজে পেয়েছি, তা শেয়ার করছি। কারও ভিন্নমত থাকলে কমেন্টে শেয়ার করবেন।
- এসইওতে কোর্সে অনেক বিষয় থাকার কারনে একটা পযায়ে গতি হারিয়ে ফেলে।
- এখনও সমাজে প্রচলিত যে, এসইওর কাজ খোজার জন্য মার্কেটপ্লেসে যেতে হবে। সেজন্য মার্কেটপ্লেসে কাজ খুজে না পেয়ে হতাশা হয়ে যাওয়া।
- পরিচিত পুরনো বন্ধু কিংবা ভাই যারা এখনও লিংকবিল্ডিংকে এসইও মনে করে, তাদের কাছ থেকে পরামর্শ গ্রহন করা।
- এসইও জ্ঞান থাকা মানে যে কোন ধরনের ব্যবসাকে প্রতিষ্ঠা করা সম্ভব, এই সংজ্ঞাতে এসইওকে না জানা।
- কোর্স চলাকালীন কিংবা কোর্স সম্পন্ন হওয়ার সাথে সাথেই আয়ের চিন্তাটা মাথাতে ঢুকে যাওয়া। যার কারনে খুব বেশি সাধনা করার মানুষিকতা থাকেনা।
- নিজের জ্ঞানকে অতি ক্ষুদ্র ভাবতে না পারা। নিয়মিত মানে প্রতিদিন এসইও সম্পর্কিত জার্ণালগুলো না পড়া।
- কোর্সে যা শিখেছেন সেটি কাজ শুরু করার জন্য যথেষ্ট মনে করা। কোর্সে পথগুলো চিনেছেন। প্রচুর সাধনার মাধ্যমেই একজন মানুষ দক্ষ হয়, এ বিষয়টি মনে না রাখা।
- অনেককে দেখি কাজে না নেমেই আগে থেকেই হতাশ হয়ে যায়। পথে নেমেই হচট খেতে খেতেই দক্ষ হতে হয়, সেই বিষয়টি নিয়ে ধারণা না থাকা।

মনে রাখবেন, সফলতা একদিনে আসেনা।

যারা এসইও কোর্স সম্পন্ন করেছেন, তারা এখনও প্রফেশনাললি কাজ করার মত উপযুক্ত হয়েছেন মনে করার দরকার নাই। এখন আপনাদের কাজ হচ্ছে, রিয়েল প্রজেক্ট করে নিজের ভেতর কনফিডেন্ট বৃদ্ধি করা, তাতে কাজের দক্ষতা বাড়বে।
এ কাজটি সহজ করার জন্য আমি একটা অ্যাফিলিয়েশন ব্যবস্থা করেছি, যার মাধ্যমে আপনি শিখতে পারবেন এবং আমার ধারণা অনুযায়ি ১৫,০০০টাকা -২৫,০০০টাকা আয় করতে পারবেন। তবে এ আয়ে সন্তুষ্ট থাকার দরকার নাই। এটা শুধুমাত্র প্রাকটিস প্রজেক্ট হিসেবে নিতে পারেন। এরপর বড় যে কোন অ্যাফিলিয়েশন শুরু করতে পারবেন। অ্যাফিলিয়েশন না হলেও অনলাইনে যে কোন ব্যবসাই শুরু করতে পারবেন।

কাজের ধাপগুলো বলে দিচ্ছি। প্রথমে অ্যাফিলিয়েশন সাইটের সাথে পরিচিত করে দিচ্ছি। zoahost.com একটি ডোমেইন হোস্টিং কোম্পানী। এখানে কাজ করেই অনলাইনে প্রডাক্ট ব্রান্ডিং, অ্যাফিলিশেন এবং অনলাইনে প্রডাক্ট প্রমোশনের কাজ শিখার প্রাকটিস শুরু করতে পারেন।
প্রথমে এ সাইটটির অ্যাফিলিয়েশনের জন্য সাইনআপের লিংক: https://my.zoahost.com/register.php
সাইনআপ করার পর অ্যাফিলিয়েশনের লিংক পেতে এ লিংকে প্রবেশ করুন। https://my.zoahost.com/affiliates.php

zoahost  এর অফারগুলোর জানার জন্য লিংক:

১) http://genesisblogs.com/technology/17224

২) ফেসবুক পেজ: https://www.facebook.com/zoahost

৩) ওয়েবসাইট: https://zoahost.com/

seo-training
এবারের ধাপগুলো:

১) সোশ্যাল মিডিয়াতে পেজ তৈরি করুন ডোমেইন হোস্টিং সম্পর্কিত। পেজটি যাতে বিজ্ঞাপনে পেজ না হয়ে মানুষকে হোস্টিং সম্পর্কে ধারণা দেওয়ার জন্য সাইট হয়, সেটি লক্ষ্য রাখবেন।
২) ডোমেইন হোস্টিং কিনার ব্যাপারে সম্ভাব্য ক্রেতা কারা হতে পারে, তাদের ব্যপারে বেসিক কিছু বিষয় আগে জেনে নিন এবং ডক ফাইলে সেগুলো লিপিবদ্ধ করুন। যেমন: ডোমেইন হোস্টিং কিনবে সাধারণত আইটি সম্পর্কিত লোকরা, ওয়েবডিজাইনাররা কিনার সম্ভবনা বেশি। ২৫- ৪০বছরে বয়সের তরুন-তরুনীরাই কিনার সম্ভাবনা বেশি। সম্ভাব্য ক্রেতার মধ্যে মেয়ের চাইতে ছেলে থাকবে বেশি।
৩) এসইওর জন্য কিংবা কোন কিছুর মার্কেটিং করার জন্য কনটেন্ট সবচাইতে প্রধান কাজ, এটা হয়ত সবাই জানি। কনটেন্ট মানেই শুধু আর্টিকেল রাইটিং না। কনটেন্ট কি কি হতে পারে, সেই বিষয়ে আমার স্লাইড: http://www.slideshare.net/ekramict/15-types-of-content-that-will-help-to-inrease-conversation-rate
উপরের স্লাইড দেখার পর আপনার হোস্টিং অ্যাফিলিয়েশনের জন্য বিভিন্ন ধরনের কনটেন্ট তৈরির কাজে নেমে পড়ুন। এজন্য কিছু হোমওয়ার্ক সম্পন্ন করুন।
- আইটি বিষয়ক সোশ্যালমিডিয়া পেজ-গ্রুপগুলো খুজে বের করে লিষ্ট তৈরি করুন। এগুলোতে নিজে জয়েন করুন।
- ডোমেইন-হোস্টিং সম্পর্কিত, সেই সাথে আইটি বিষয়ক বিভিন্ন টিপস সম্পর্কিত আর্টিকেল গুগল থেকে সার্চ করে খুজে বের করে লিংকের লিস্ট তৈরি করুন।
- আইটি বিষয়ক বিভিন্ন বিষয় সম্পর্কিত ইনফোগ্রাফিক খুজে বের করুন। সেজন্য পিন্টারেস্ট ভাল সাহায্য করবে। সেখান থেকে খুজুন এবং ডাউনলোড করে রাখুন।

ইনফোগ্রাফিক শিখার জন্য আমার এসইও ক্লাশের একটি ভিডিও শেয়ার করছি।

- এ রিলেটেড ভিডিও খুজে বের করুন। এবং লিস্ট তৈরি করুন।

৪) পেজটির পোস্ট করার জন্য কনটেন্ট ক্যালেন্ডার তৈরি করে নিন, তাহলে ফল পাবেন, যা পরিশ্রম করবেন, সবটার লাভ পাবেন। কনটেন্ট ক্যালেন্ডার হিসেবে দুইটা ডেমো দিচ্ছি।
লিংক: ক) https://www.mediafire.com/?i4x1h36s3u4f162
খ) http://www.mediafire.com/view/c5yfdv69cqu8i19/Joti_Hijab.pdf

৫) হোমওয়ার্ক কমপ্লিট। এবার কাজ শুরু করুন। ক্যালেন্ডার মেইনটেইন করে। অন্য গ্রুপগুলোতে লক্ষ্য করুন, কোন পোস্টগুলোতে মানুষ বেশি এনগেজ আছে। সেই টাইপ পোস্ট করুন। সেই পোস্টগুলোকে ক্রেডিট দিয়ে সেগুলোই ব্যবহার শুরু করতে পারেন। তবে ভাল হয়, আইডিয়া নিয়ে নিজের মত তৈরি করলে। প্রতিদিন মিনিমাম ৩টা করে পোস্ট করবেন। ৩বেলাতে ৩টা পোস্ট করতে হবে। প্রয়োজনে ফেসবুক পেজের শিডিউল পোস্ট ব্যবহার করে পোস্ট করুন। তাহলে কোন বেলা মিস হবেনা।
৬) যেই পোস্টগুলো করবেন পেজে, এরমধ্যে যেগুলো মনে হচ্ছে অন্যদের জন্য উপকারী পোস্ট, সেগুলো আবার ক্রেতা হতে পারে এরকম সম্ভাব্য গ্রুপগুলোতে শেয়ার করুন। পেজের লিংকসহ। প্রতিবেলাতে কমপক্ষে ১৫টা গ্রুপে আপনার পেজের পোস্টকে শেয়ার করুন। তাহলে ফল পাওয়া শুরু করবেন। ১৫ দিন যাওয়ার পর পেজে অন্যান্য উপকারী পোস্টের পাশাপাশি অ্যাডভার্টাইজ করতে পারেন। আপনার অ্যাফিলিয়েশন লিংক শেয়ার করবেন।
৭) ১৫ দিন পর পেজে পোস্টের পাশাপাশি ব্লগিং শুরু করতে পারেন। শুরুর দিকে গেস্ট ব্লগিংয়ের মাধ্যমে কাজ করতে পারেন। চাইলে সাথে আপনার একটা ফ্রি ব্লগ তৈরি করেও সেটিও আপনার কাজের তালিকাতে যোগ করতে পারেন।
ব্লগিংয়ের সময় আর্টিকেলটি নিচে আপনার ফেসবুক পেজের লিংক দিয়ে আসতে পারেন।
৮) যদি ফোরাম পোস্টিং , ব্লগ কমেন্টিং, সোশ্যাল বুক মার্ক, ডিরেক্টরী সাবমিশনটাও প্রাকটিসটাও করে নিতে পারেন। সেক্ষেত্রে আপনি যে ফ্রি কিংবা পেইড ব্লগটা তৈরি করেছেন, সেটির জন্য কাজ করুন। ফল পাবেন আরও কয়েকগুন বেশি।
৯) ভিডিও কেমন কাজে লাগবে বুঝতেছিনা। তবে আপনারা করতে পারেন। তাহলে ভিডিও মার্কেটিংটাও প্যাকটিস হবে।
প্রতিনিয়ত যা যা করছেন, কি ফল হচ্ছে সেটা অবশ্যই মনিটরিং করবেন। তবে শর্ট টাইম ফলের আশা করবেননা। যেভাবে বলেছি, সেই ভাবে রুটিন মেনে কোন ধরনের ব্রাক না দিয়ে কাজ করলে ১০-১৫দিনে বুঝতে পারবেন, এসইও কোর্স করে যে বিদ্যা শিখেছেন সেটি কেমন কাজ দেয়। ভাল কনটেন্ট আপনাকে ভাল রেজাল্ট এনে দিবে। সেই জন্য সেই বিষয়ে লক্ষ্য রাখুন।

ইমেইল মার্কেটিংও করতে পারেন, ভাল ফলাফল পাবেন। ইমেইল মার্কেটিং সম্পর্কে জানার জন্য হাবীবুর রহমান দীপুর লিখা পড়তে পারেন।

ইমেইল মার্কেটিং সম্পর্কিত শিখার লিংক: http://genesisblogs.com/author/tutodipu
এভাবে আপনারা এগিয়ে যান, আশা করি শিখতে পারবেন। ফলগুলো দেখতে পারবেন। টার্গেট অবশ্যই ১ম মাস থেকেই যাতে ১০,০০০টাকা আয় করতে পারেন, সেটি মাথাতে রাখবেন।

পেইড মার্কেটিংয়েও যেতে পারেন। তাতে ৯০% বেশি ফলাফল বেশি পাবেন। তবে শুরুতে না যাওয়াটাই বুদ্ধিমানের কাজ হবে। কি করলে কিরকম বেনিফিটেড হচ্ছেন, সেটি যখন বুঝে যাবেন, তখনই শুধুমাত্র পেইড ক্যাম্পেইনে যাবেন।
আরও পরামর্শ থাকলে এ পোস্টেই এডিট করে যোগ করব। সুতরাং লক্ষ্য রাখুন এটি।

tt

ঘরে বসে নিজে নিজে শিখার জন্য আমার নিজের তৈরি রিসোর্সগুলো দেখতে পারেন।

ব্লগ লিংক: http://genesisblogs.com/author/ekram

ইউটিউব ভিডিও লিংক: https://www.youtube.com/channel/UC6BoNu-HyGcYvS-6qE9DYQw

ফেসবুক পেজ: https://www.facebook.com/ekram07

  • Md Saifur Rahman Khan

    Very nice & helpful article for beginner who has completed SEO writing. Thanx a lot for a good article.

  • Sohan Kowsar

    Thanks for sharing. :) your guideline will in shaa allah help me.