ফাইভারে ভিডিও যুক্ত করা সম্পর্কে বিস্তারিত, সাথে ভিডিও তৈরির গাইড লাইন

টিউন করেছেন Golam Kamruzzaman | April 30, 2015 03:48 | পোস্টটি 2,790 বার দেখা হয়েছে

ফাইভারে ভিডিও যুক্ত করা সম্পর্কে বিস্তারিত, সাথে ভিডিও তৈরির গাইড লাইন


ফাইভারের কাজে সফলতার জন্য ভিডিও তৈরি করতে হয় এটা আমরা জানি সবাই। কিন্তু কেন ভিডিওতেই সফলতা কিংবা কিভাবে ভিডিও বানাতে হয়, সেটি অনেকেরই ভালভাবে জানা নাই। সেজন্য আজকের এ লেখাটি। লেখা দ্বারা নিজে উপকৃত হলে সেটি নিজের ফেসবুক ওয়্যালে শেয়ার করবেন এবং সম্ভব হলে কমেন্ট করবেন। তাহলে লিখার কষ্টটাকে স্বার্থক মনে হবে।

ফাইভারে সফলতা পাওয়ার টিপস নিয়ে এ ব্লগে প্রকাশিত অন্য একটি লেখা আগে পড়ে নিতে পারেন।

ফাইভার মার্কেটপ্লেসে প্রচুর কাজ পাওয়ার কিছু এক্সক্লুসিভ এবং অব্যর্থ টিপস

 scr1

কেন ভিডিও?

আমরা যে বিষয়গুলো শিখি তার ৭০ ভাগহচ্ছে ভিজুয়ালাইজেশনের মাধ্যমে আর বাকি ৩০ ভাগ হচ্ছে শোনা বা পড়ার মাধ্যমে।উদাহরণ হিসাবে বলতে পারি মনে দাগ কেটে যাওয়া কোন মুভি দেখে আমরা

পরবর্তীতে তা প্রায় হুবহু বলতে পারি, অথচ ভাল মত পড়ার পরও পরবর্তীতে আমরা তার অনেককিছুই ভুলে যাই। এই জন্যই যে কোন কিছু মার্কেটিং করতে গেলে ভিজুয়ালাজেশনকেএত গুরুত্ব দেওয়া হয়।

যে পেজে ভিডিও যুক্ত আছে Google তাকে অগ্রাধিকার দেয়। সামনের দিনগুলোতে Google, Facebook, Yahoo ইত্যাদি টেক জায়েন্ট ষ্টীল ছবির থেকে ভিডিও কে অধিক গুরুত্ব দেবে। নিজেকে ব্রান্ড হিসেবে উপস্থাপনের জন্য এখনই সময় ভিডিওকে নিয়ে ভাবার। আপনি যদি নিজের ভিডিও নিজেই তৈরি করতে পারেন, তবে নিঃসন্দেহে আপানার ফ্রিল্যান্সিং ক্যারিয়ার একধাপ এগিয়ে যাবে। শুধু Fiverr নয় যেকোন মার্কেট প্লেসে ভিডিও যুক্ত প্রোফাইলকে আলাদা গুরুত্ব দেয়া হয়। এছাড়া আপনার ভিডিও দিয়ে You Tube এ চ্যানেল খুলে আপনি ভাল ইনকামও করতে পারবেন।

কেন Fiverr গিগ এ ভিডিও?

এতে কোন সন্দেহ নেইযেআপনি যদি আপানার গিগে ভিডিও যোগ করেন, তাহলে আপনার সেল নিঃসন্দেহে অনেক বাড়বে।গত ২০১৪ এর পরিসংখ্যান অনুযায়ী, Fiverr ব্লগ থেকেজানা যায় যে, যেসকল গিগে ভিডিওছিল তাদের সেল অনেক বেড়েছে।শুধু তাই নয় যে সকল সেলারের ভিডিওতে নিজেরাই নিজেদের কাজ উপস্থাপন করেছেনতাদের সেল বেড়েছে ৯৬% আর যাদের ভিডিও ইফেক্ট, এনিমেশন, লেখা, ষ্টীল ছবি, ইত্যাদির মাধ্যমে প্রকাশ করেছেন তাদের সেল বেড়েছে ৮৪%। মিউজিক এবং অডিওক্যাটাগরিতে যাদের ভিডিও ছিল তাদের সেল বেড়েছে অবিশ্বাস্যভাবে ৪১৮%।কাজেই বুঝতে পারছেন ভিডিওর গুরুত্ব।

ব্যক্তিগত ভাবে বলতে পারি, শুরু থেকেই আমার প্রতিটা গিগেই ভিডিও যুক্ত আছে। এবং আমি ভাল ফল পেয়েছি।উদাহরন হিসাবে বলতে পারি নতুন পাবলিশ আমার একটা গিগে মাত্র ৪৬ টাক্লিক পড়েছিল। কিন্তু মজার ব্যাপার হচ্ছে অর্ডার হয়েছে ৯ টা, অর্থাৎ বায়ার রেস্পন্স অনেক বেশি। উল্লেখ্য ওই গিগে ভিডিও যুক্ত আছে। পুরাতন গিগের থেকে নতুন গিগে ভিডিও যুক্ত করলে ভাল ফলপাওয়া যায়। অর্থাৎ যখন আপনি গিগ ছাড়বেন তক্ষণই ভিডিও যুক্ত করবেন। এতে আপনার গিগ ভিউ বাড়বে এবং গিগ শুরুর দিকে শো করবে। পুরাতন গিগ যেটা সেল ভাল হচ্ছে না, সেটা এমনিতেই নিচের দিকে আছে। তাতে ভিডিও যুক্ত করলে হয়ত কিছুটা উপকার আছে, কিন্তু নতুনের মত নয়। আশা করি বুঝতে পেরেছেন।

FIVERR-SCAN-1

এখন ভিডিওর ব্যাপারে Fiverr এর কিছু নিয়মাবলীঃ

১। ভিডিও অবশ্যই ১ মিনিট বা তার কম হতে হবে।

২. ভিডিও সাইজ সর্বচ্চ ৫০ এমবি বা এর কম হতে হবে।
৩। “Exclusively on Fiverr” এই কথাটা অবশ্যই ভিডিওতে থাকতে হবে। সেটা লিখে, মুখে বলে, বা ছবির মাধ্যমে যে ভাবে হোক।
৪। পর পর তিনবার ভিডিও রিজেক্ট হলে আর কখনই গিগে ভিডিও যুক্ত করতে পারেননা। কাজেই সাবধান। উপরোক্ত ১,২,৩ করণেই সাধারণত ভিডিও রিজেক্ট হয়।
৫। ভিডিও অবশ্যই গিগের উপর ভিত্তি করে হতে হবে।
৬। একই ভিডিও একধিক গিগে যুক্ত করতে পারবেন, তবে ভিডিও গিগ সম্পর্কিত হতে হবে।
৭। ভিডিও যুক্ত করার সাধারণত ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই গিগে শো করে। এর আগেও শো করতে পারে।
৮। ভিডিও পাবলিশ হবার পর যতবার খুশি ভিডিও পরিবর্তন করতে পারবেন।

৯। Thumbnail ইচ্ছেমত পরিবর্তন করতে পারবেন। সেক্ষেত্রে ভিডিও চালু করে যে স্ক্রিনশটকে Thumbnail করবেন সেখানে Pause করুন। এরপর তাকে Thumbnail হিসাবে পাবলিশ করুন।

১০। মোটামুটি জনপ্রিয় সব ফরম্যাটেই আপনি ভিডিও দিতে পারবেন যেমন Avi, MPEG, PM4, FLV ইত্যাদি। Fiverr স্বয়ংক্রিয় ভাবে সেটা FLV তে কনভার্ট করে নেয়।

১০। আপনি যেকোন স্ক্রিন রেসিওতে আপনার ভিডিও দিতে পারেন। তবে আদর্শ হচ্ছে You Tube স্ক্রিন রেসিও ১২৮০x৭২০ MP4 ফরম্যাট। এতে আপানার ভিডিও ফুল স্ক্রিনে দেখাবে। এর থেকে কম হলে স্ক্রিনের দুই পাশে বা উপরে নিচে কিছু অংশ কাল দেখাবে। এই ফরম্যাটে করাই ভাল কারন আপনি ভিডিও ইউ টিউবেও আপলোড করবেন।

 ভিডিও তৈরির সহজ প্রক্রিয়াঃ

Fiverr গিগ ভিডিওতে নিজেকে উপস্থাপন করতে পারলে সব থেকে ভাল। কারন বায়াররা এতে প্রভাবিত হয়, এবং সেল বাড়ে এটা প্রমানিত। এখন আসি কিভাবে ভিডিও করবেন। আমরা কম বেশিসবাই ইংরেজি বলতে ও লিখতে পারি। প্রথমে আপনি যে বিষয়ের উপর ভিডিও করবেন তাখাতায় সুন্দর ভাবে লিখে ফেলুন। এরপর তা সংশোধন করুন। আশপাশের ভাল ইংরেজিজানা কোন বড় ভাই থাকলে তাকে দেখিয়ে সংশোধন করুন।

এর পর রচনামুখস্ত করার মত করে মুখস্ত করে ফেলুন। মুখস্ত হয়ে গেলে বড় সাইজের আয়নারসামনে দাড়িয়ে নিজের চোখের দিকে তাকিয়ে মুখস্ত বলা শুরু করুন। আনুভব করবেনযে আপনার বুক প্রচন্ড ধড়ফড় করছে, গলা শুকিয়ে আসছে এবং দুই হাঁটু খুবকাঁপছে। ভয় পাবার কিছুই নেই। প্রথম প্রথম এই রকম হবে। সাহস করে প্রাকটিস করুন দেখবেন কয়েক দিনেই সব ঠিক হয়ে যাবে। আমার প্রথম ভিডিও তৈরিকরতে প্রায়৭ দিন প্রাকটিস করতে হয়েছিল। এখন দিনে কয়েকটা ভিডিও করতে পারব।আসলে প্রথমটাই একটু কঠিন। এর পর খুবই সহজ।

আপনার প্রাকটিস শেষ হলে এবার ক্যামেরার সামনে দাঁড়িয়ে যান। এই ক্ষেত্রে আপনি ভাল রেজুলেশনের মোবাইল ফোন, ভিডিও কামেরা বা ওয়েব ক্যাম ব্যাবহার করতে পারেন। ক্যামেরার লেন্সের দিকে তাকিয়ে আপনার রচনা মুখস্ত বলে যান। মুখে স্মিত হাসি রাখলে ভাল। এই ক্ষেত্রেও আপনাকে বেশ অনেকবার প্র্যাকটিস করতে হবে। পিছনে নীল রঙের পর্দা বা সাদা রঙের পর্দা টানিয়ে নিতে পারেন। যদি পর্দা না থাকে তবে এক রঙের দেয়ালের সামনে দাড়িয়েও আপনি ভিডিও রেকর্ড করতে পারেন। তবে খেয়াল রাখবেন আপনার চারপাশে যেন প্রচুর আলো থাকে। আশপাশে যেন বেশি শব্দ নাহয়। সব কিছু ঠিক থাকলে এবার সম্পাদনার পালা। নিচে ভিডিও করার উপকরণ এবং ভিডিও এডিটিং বিষয়ে আলোচনা করা হল।

 প্রফেশনাল ভিডিও তৈরির উপকরনঃ

প্রফেশনাল ভিডিও তৈরি করতে প্রথমেই আপানার কিছু উপকরণ লাগবে। সেগুলো নিয়ে আলোচনা করা হল।

ক্যামেরাঃ

ভিডিও করার জন্যআপনি ভালরেজুলেশনের মোবাইল ফোন,ভিডিও কামেরা বা ওয়েব ক্যাম ব্যাবহার করতে পারেন। যত হাই রেজুলেশনের ক্যামেরা হবে ভিডিও  তত ভাল হবে।camera

ট্রাইপডঃ

ক্যামেরা স্থির ভাবে ধরে রাখার জন্য এটা ব্যাবহার করা হয়। আপানার ক্যামেরার মডেলের উপর ভিত্তি করে বাজারে বিভিন্ন দামের ট্রাইপড পাওয়া যায়। সাধারন মানের ট্রাইপড ২০০-৭০০ টাকার মধ্যাই পাবেন।

ফোকাস লাইটঃ

ভিডিও স্পষ্ট ভাবে দেখার জন্য লাইটিং অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। বাজারে বিভিন্ন দামের  ফোকাস লাইট পাওয়া যায়। একটু বুদ্ধি খাটিয়ে খুব সহজেই আপনি ফোকাস লাইট তৈরি করতে পারেন। যদি সম্ভব না হয় তবে বেশি পাওয়ারের উজ্জ্বল আলোর নিচেও আপনি ভিডিও রেকর্ডিং করতে পারেন।

camera light

গ্রিন স্ক্রিনঃ

প্রফেশনাল মানের ভিডিও করার জন্য বর্তমানে সবচেয়ে বেশি ব্যাবহার করা হয় এই গ্রিন স্ক্রিন। এতে ছবি ইডিট করা খুব সহজ। আপনি চাইলেই ছবির ব্যাকগ্রাউন্ড হিসেবে ছবি এনিমেশন ইত্যাদি ব্যবহার করতে পারবেন।হলিউডের ছবিতে এনিমেশন, স্পেশাল ইফেক্ট দেয়ার জন্য ভিডিও এই গ্রিন স্ক্রিনে ধারন করা হয়। কিভাবে গ্রিন স্ক্রিনে ভিডিও ধারন করতে হয় এই ব্যাপারে ইউ টিউবে সার্চ দিলে অনেক ভিডিও পাবেন। আপনি দেয়ালে নীল রঙের কাপড় বা কগজ ঝুলিয়ে, গ্রিন স্ক্রিনের বিকল্প ব্যবস্থা করতে পারেন। এর সব থেকে বর সুবিধা হল আপানি চাইলে ভিডিওর পিছনে যেকোন ব্যাকগ্রাউন্ড দিতে পারবেন। যেটা আপানার ভিডিওকে আরও আকর্ষণীয় করবে। Camtasia Studio 8 এর মত সফটওয়্যার দিয়ে খুব সহজেই আপনি গ্রিন স্ক্রিন ইডিট করতে পারবেন।

  ভিডিও সম্পাদনা

camtasia

ভিডিও সম্পাদনার জন্য অনেক ধরনের Software আপনি পাবেন। তবে ব্যক্তি গত ভাবে আমি “Camtasia Studio 8″ এই Software টি ব্যবহার করি। নতুনদের জন্য এটা খুবই ভাল

Software এর মাধ্যমে আপনি আপনার ভিডিওতে খুব সহজেই এনিমেশন, ছবি, মিউজিক, ইত্যাদি যোগ করতে পারবেন। ভিডিওরসময় সীমাও নির্ধারণ করতে। সফটওয়্যারটি এখান থেকে ডাউনলোড

করে নিন। Camtasia Studio 8 উপর অনেক টিউটোরিয়াল তাদের অফিসিয়াল ওয়েবসাইটেই পাবেন। অফিসিয়াল সাইটে টিউটোরিয়ালগুলো এখান থেকে   ডাউনলোড করে দেখতে পারেন। ২/৩ দিন

প্র্যাকটিস করলেই মোটামুটি আপনি ভিডিও সম্পাদনা করতে পারবেন।

আপনি যদি নিজেকে উপস্থাপন করতে অস্বস্তি বোধ করেন তাহলেও কোন সমস্যা নেই। আপনি লেখা, ছবি, এনিমেশন, ইতাদির মাধমেও খুব সুন্দর ভিডিও তৈরি করে পারেন। এমন কি আপানি Power Point এর মধ্যমে স্লাইড শো তৈরি করে তাতে শব্দ যুক্ত করেও খুব প্রফেশনাল মানের ভিডিও তৈরি করতে পারেন। Camtasia Studio 8 এর মাধমে খুব সহজেই Power Point রেকর্ডিং করা যায়। Power Point দিয়ে তৈরি একটা সুন্দর ভিডিও শেয়ার করছি। এখান থেকে ভিডিওটি দেখুন। এছাড়া আমার একটা  ভিডিও শেয়ার করছি, যেটা এড করার পর আমার গিগে সেল অনেক বেড়ে গিয়েছিল।

 

এরপর আপনার ভিডিওটি গিগে যুক্ত করুন, You Tube এ আপলোড করুনএবং এর লিঙ্ক Social মিডিয়াতে শেয়ার করুন। ফলাফল দেখে আপনি নিজেই অবাক হয়ে যাবেন। আপনি বিশ্বাস করুন যদি একবার ভিডিও তৈরি করা শিখতে পারেন, তবে এটা আপনার একটা লাইফ টাইম অর্জন হবে। আপনি উপকৃত হবেন নিঃসন্দেহে। যদি আপনি সঠিক জায়গায় আপনার ভিডিও শেয়ার করতে পারেন তবে ভিউ হবে হাজার হাজার। এখান থেকেই অনেক বায়ার আপনাকে খুজে নেবে। আপনি অনেক কাজ পাবেন। আমার লেখাপড়ে অন্তত একজনও যদি ভিডিও বানাতে আগ্রহী হয়,তবে সেটাই আমার সবাই ভাল থাকবেন।

ধন্যবাদ!
(এই লেখা Fiverr Help ফেসবুক গ্রুপ থেকে প্রকাশিত। সুত্র উল্লেখ করে যেকোন জায়গায় এই লেখা শেয়ার করতে পারবেন। গ্রুপে জয়েন করে ফ্রিলান্সিং সম্পর্কিত সেবা পেতে পারেন।)

  • M S Jahan Du

    Very much informative post. I was really looking for such an article.

  • Farhad Hossen Fahim

    Great post ever

  • amir

    thanks

  • jalish mahamud

    tnx a ton …

  • forhad khan

    ‘যদি আপনি সঠিক জায়গায় আপনার ভিডিও শেয়ার করতে পারেন তবে ভিউ হবে হাজার হাজার।’
    vai ai shothik jayga ta kothay r kivabe shothik jyga khuje pabo aktu bolben please?