যোগ্য ফ্রিল্যান্সার হিসেবে সফল ক্যারিয়ার গড়তে যা না জানলেই নয় …..(পর্ব-০১)

টিউন করেছেন শমি হোসাইন | April 13, 2015 09:25 | পোস্টটি 1,074 বার দেখা হয়েছে

images
আমাদের দেশে দেখা গেছে, শতকরা ৯০% ছাত্রেরই উদ্দেশ্য থাকে, লিখা পড়া শেষ করেই একটি চাকুরী জুঠিয়ে নেবে। তাদের উদ্দেশের কথা শুনলে মনে হবে, যেন আমাদের দেশের কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়গুলো শুধু চাকর তৈরী করছে! শুধু চাকুরী নিয়ে ভাবতে ভাবতে, এক সময় দেশের সেরা ছেলেগুলো তাদের মনোজগতে নিজেরাই নিজের প্রবৃত্তির চাকর হয়ে যায়। নিজে স্বাধীনভাবে কিছু করার চেয়ে, চাকর হিসেবে চাকুরী করাকেই নিজের জীবনের ব্রত বানিয়ে নেয়। অথছ এর বাহিরেও যে হাজারো কাজ আছে, আয়ের উৎস আছে, এসব নিয়ে তারা কখনও ভাবেনা, ভাবতে চায়না। প্রতি বছর লাখ লাখ ছাত্র বিশ্ববিদ্যালয়, কলেজ থেকে বের হচ্ছে। একটি চাকুরীর সন্ধানে যুবকের মিছিল দীর্ঘ থেকে দীর্ঘতর হচ্ছে। যেকোন রকমের চাকুরী হলেও চলছেনা, তাদের যথেষ্ট পছন্দনীয় হতে হবে সেটি। চাকুরীতে চেয়ার টেবিল থাকতে হবে, সকাল ৮টা-৫টা ডিউটি হতে হবে। গলায় টাই, চোখে চশমা, হাতে ব্রিফকেস নতুবা লেপটপ, কোম্পানীর গাড়ী, ভাল বেতন, বছরান্তে বোনাসের সুযোগ থাকতে হবে। তাহলে বড় ঘরের মেয়ে পাওয়া যাবে বউ হিসেবে, সন্তানদের ইংলিশ মিডিয়ামে পড়ানো যাবে, রাজধানীতে বাড়ী করা যাবে। এসব স্বপ্ন দিয়েই তৈরী হয় বাংলাদেশের প্রতিটি বিশ্ববিদ্যালয় উত্তীর্ণ ছাত্রদের কল্পনার ভবিষ্যৎ। তাদের কল্পনার চাকুরে জীবন এমনিতেই প্রতিটি দেশেই কম এবং আমাদের দেশে খুবই নগন্য।
নিজে স্বাধীনভাবে কাজ করার আধুনিক নাম হলো ফ্রিল্যান্সিং আপনার একটু দুরদর্শিতা বদলে দিতে পারে আপনার অনলাইন এবং অফলাইন জীবন।আপনি হতে পারেন সেরা ফ্রিল্যান্সার, এর জন্য আপনাকে যা করতে হবে সেই সম্পর্কে ধারনা দেওয়ার জন্য আজকের এই লেখা। আমাদের দেশে তরুনদের কাছে বর্তমানে অনলাইন জগতে সর্বাদিক আলোচিত শব্দ হলো ফ্রিল্যান্সিং। অনেকেই মনে করনে https://www.odesk.com/ ওডেক্স এর ওয়েব সাইটে গিয়ে একটা একাউন্ট খুলেই যেন ফ্রিল্যান্সার হয়ে গেছে। আসলে বিষয়টি এমন নয়। কথা হলো ফ্রিল্যান্সার কি শুধু অনলাইনের মাধ্যমে কম্পিউটারে কাজ করাকেই বুঝায়। ব্যাপারটা আসলে তেমন না আপনি চাইলে অনলাইন,অফলাইনের সমন্বয় ঘটিয়ে আপনি হতে পারেন একজন সফল ফ্রিল্যান্সার। ফ্রিল্যান্সার বিষয় টি নতুন কোন বিষয় নয়, আমাদের অনেক অত্মীয় স্বজন মধ্যেপ্রাচ্যে থাকে তাদের অনেকেই বলতে শুনবেন ফ্রি ভিসায় আছেন যার অর্থ তার নির্দারিত কোন কাজ নাই বা কোন কোম্পানী অধীনে কাজ করেনা। যা সামনে পাবে তাই করবে। আর এধরনের লোক দিয়ে যারা কাজ করান তাদেরও লাভ রয়েছে যতটুকু কাজ করাবে ততটুকু বিল দিতে হবে। একজন শ্রমিক কে যদি মাসিক ভাবে নেয়া হয় তাহলে তার সকল দায় দায়ীত্ব কোম্পানীকে নিতে হয়। তার চেয়ে কন্ট্রাক ভিত্তিক নেওয়াটাকে অনেকে ভাল মনে করেন। ফ্রি ভিসায় কাজ করার লেটেস্ট ভার্সন হলো ফ্রিল্যন্সার। এছাড়াও বুদ্ধিজীবি, লেখক, অভিনয় শিল্পী, রিকসা চালক, ডে লেবার একেকজন ফ্রিল্যান্সার।যেহেতু ধরাবাধা কোন সময় নাই তাই অনেকের পছন্দের পেশা হিসেবে ফ্রিল্যান্সিং কে চেচে নিচ্ছে।
এ জগতে আপনি খুবসহজেই নিজেকে তৈরী করে নিতে পারেন। আর এর জন্য কিছু যোগ্যতা অর্জন করতে হবে আপনাকে। বর্তমান বিশ্ব সম্পর্কে স্বচ্ছ ধারনা রাখতে হবে, হতে হবে প্রো-একটিব। প্রশ্ন আসতে পারে কোন বিষয়ের উপরে যোগত্যা অর্জন করতে হবে। এ বিষয়ে আমি বলতে পারি আপনাকে ককটেল জুস হতে হবে। সকল বিষয় সম্পর্কে আপনাকে ধারনা রাখতে হবে। আর এই ককটেল জুস হতে হলে নিজেকে যোগ্য করে তুলতে হবে। একজন স্মার্ট ফ্রিল্যান্সার হতে হলে যেসব যোগ্যতায় নিজেকে পারদর্শী করে তুলতে হবে। তা নিয়ে একটু আলোচনা করা যাক……
 কম্পিউটার অপারেটিং :- সবার আগে যে যোগ্যতা থাকতে হবে সেটা হলো আপনাকে ভালভাবে কম্পিউটার চালনা শিখতে হবে। অপরেটিং সিস্টেম ও এপ্লিকেশন সফটওয়ার গুলোর উপরে এক্সপার্ট হতে হবে। মাইক্রোসফট অফিস অবশ্যই জানেত হবে। মোটামুটি বাংলা ইংরেজী টাইপিং জানতে হবে। বিভিন্ন সফটওয়্যার সম্পর্কে প্রথমিক ধারনা রাখতে হবে।
 ভাষা জ্ঞান: আপনাকে অবশ্য কয়েকটি ভাষা সম্পর্কে ধারনা রাখতে হবে। নিজের মাতৃভাষা তো রয়েছে । এর পরে ইরেজী জানতে হবে খুববেশী এক্সপার্ট হওয়ার দরকার নাই। পড়তে, লিখতে এবং বলতে পারলেই হলো। হিন্দি এবং উর্দু ভাষাটা জানা থাকলে অনেক ক্ষেত্রে অনেকের থেকে এগিয়ে থাকবেন। তাই ভিবিন্ন ভাষা চর্চা করতে পারেন।
 ড্রাইভিং লাইসেন্স :- বলা হয়ে থাকে, মধ্য প্রাচ্যে ড্রাইভিং লাইসেন্স পাওয়া আর ড. ডিগ্রী অর্জন করা সমান কথা। ৫০ ঘন্টা স্কুলে গাড়ী না চালালে কাউকে পরীক্ষার জন্য রাস্তায় তোলা হয়না। বছরের পর বছর চলে যায়, সামান্য মাত্র ভুলের কারনে অনেকে লাইসেন্স পায়না।একজনকে ১০ বছর আরেক জনকে ১৪ বছর পর লাইসেন্স পেতে দেখেছি। বাংলাদেশ থেকে প্রচুর ছেলেরা ড্রাইভার হিসেবে চাকুরী করছে আমীরাতে। অনেকে মাষ্টার্স পর্যন্ত শেষ করেছেন। তাই আজ আমাদের দেশেও শিক্ষিত ছেলেদের ড্রাইভার হয়ে এগিয়ে আসা উচিত। আরোহীরা অন্তত শিক্ষিত মানুষ থেকে ভদ্র আচরণ পাবে, তাদের দেখে আরো শিক্ষিত ছেলেরা একাজ করতে উৎসাহিত হবে। শিক্ষিত ছেলেরা যত তাড়াতাড়ি ড্রাইভিং পেশায় এগিয়ে আসবে, দেশের ও জাতীর জন্য তত দ্রুতই মঙ্গল হবে। একজন সি, এন, জি চালক মাসে ১০ হাজার টাকার উপরে বেতন তুলে পক্ষান্তরে একজন ডিগ্রি পাশ ছাত্র ৫ হাজার টাকা বেতন তুলতে হিমসিম খায়। লেখাপড়া শিখেও একজন ড্রাইভারের চেয়ে এদের বেতন ও জীবন মান কম। ফলে, শিক্ষিত সমাজের কাছে হতাশা মহামারির মত দেশের সর্বত্র ছড়িয়ে পড়ছে। আমাদের দেশের শিক্ষত ছেলেদের মনোবৃত্তি পরিবর্তন করা খুবই জরুরী। একদল আদর্শ ও শিক্ষিত ড্রাইভারের পক্ষেই সম্ভব, একটি জাতিকে সমূহ মৃত্যুর ফাঁদ থেকে বাঁচাতে। প্রতি বছর হাজার হাজার মানুষকে পঙ্গুত্বের হাত থেকে রক্ষা করতে। তাই আমরা চাই, আদর্শ, কর্মঠ, শিক্ষিত, নিষ্টাবান চরিত্রের একজন উত্তম ড্রাইভার!
 গ্রাফিক্স প্রোগ্রাম জানা :- আমরা বেশীর ভাগ লোকই মনে করি গ্রাফিক্স প্রোগ্রাম মানে এডোব ফটোসপ এবং ইলেস্টটর। আসলে তা নয় এখন অনেক ভালো ভালো গ্রাফিক্স সফটওয়ার রয়েছে যা ব্যবহার করে সহজেই আপনার গ্রাফিক্স কাজ চালিয়ে যেতে পারের খুব সহজেই। তাই আপনাকে গ্রাফিক্স সফটওয়ার চালনা শিখতে হবে জানতে হবে।

 ব্লগিং,ফেইসবুকিং ও অনলাইন :- সর্বোপরি আপনাকে অনলাইন স্মার্ট হতে হবে। বিভিন্ন ব্লগ সম্পর্কে ধারনা রাখতে হবে। কমবেশী কমেন্টস করতে হবে। অনলাইন পরিচিতি বাড়াতে হবে। সফল ব্যাক্তিদের লেখা পড়তে হবে। আপনাকে একজন অনলাইন এক্টিভিস্ট হতে হবে।

 নিজেকে ব্রান্ডিং করতে হবে :- জীবনে সফল হতে হলে নিজেকে ব্রান্ডিং করার কোন বিকল্প নাই। এখানে নিজের ঢোল নিজেকেই বাজাতে হবে। আপনি কি তা ভাল ভাবে উপস্থাপন করুন। ভিবিন্ন ট্রেড কোর্স করুন । নিজের একটা ওয়েব সাইট বানান। ভিবিন্ন ট্রেনিং সেন্টার এর সাথে নিয়মিত যোগাযোগ রাখুন। প্রথমে ছাত্র হোন পরে শিক্ষক হন। অল্প টাকায় নিজস্ব ওয়বে সাইট অনেকেই তৈরি করে দিচ্ছে তাদের মধ্যে অন্যতম ডিজিটাল সেবা.কম। জ্ঞান বিনিময় করুন। আপনি যা জানেন তা অন্যকে জানতে সহযোগিতা করুন এত আপনার জ্ঞানের চর্চা বাড়বে।
 নতুন পেশা সম্পর্কে জ্ঞান অর্জন করা :- গতানুগতিক পেশা পরিবর্তন করে নতুন পেশায় আশার মানসিকতা রাখতে হবে। একটু ঘাটাঘাটি করলেই দেখতে পারেন আপনার আশে পাশেই রয়েছে অনেক পেশা যার প্রতিদন্ধী তৈরী হতে হতে আপনি সেইফ পজিসনে চলে যাবেন। পড়ালেখা কখনো পেশা নির্বাচন করতে পারেনা। পড়ালেখা হলো শিক্ষিত হওয়ার জন্য। মনে রাখবেন আপনার সার্টিফিকেট যে আপনার ক্ষতির কারন না হয়। কাজকে কখনো ছোট মনে করবেন না। একটু অন্য ভাবে করুন দেখবেন সফলতা আছে।

আগামী পর্বে কয়েকটি নতুন পেশা নিয়ে লিখবো যা আপনাকে ফ্রিল্যান্সার হিসেবে ক্যারিয়ার গড়তে সাহায্য করবে। সকলে ভাল থাকবেন……………….

  • Nusrat Jahan

    100% trusted ptc site
    daily payout system
    daily earn .08
    payout minimum .02
    this is my payment proof
    i received my first payout on first day
    you can join us
    http://www.salimbux.com/?ref=tk07