বিশ্বকাপ ফুটবলের ড্র ও ফিকশ্চার তৈরি করতে চান?

টিউন করেছেন Afroza Sultana | July 1, 2014 05:07 | পোস্টটি 618 বার দেখা হয়েছে

বিশ্বকাপ ফুটবলের ড্র ও ফিকশ্চার তৈরি করতে চান?


কোনো টুর্নামেন্টের ড্র ও ফিকশ্চার তৈরি করার মজাই আলাদা। যেমন ফুটবল বিশ্বকাপের ফাইনাল ড্র-এর আগে নিজস্ব ড্রক রে ২৪ বা ৩২ টিমের গ্রুপিং তৈরি করে ফাইনাল ড্র-এর সাথে মিল-অমিলের তালিকা বানিয়েও অনেক আনন্দ পাওয়া যায়।

 

f4

২২ থেকে ২৯টা দলকে ৬ থেকে ৮টা দলে ভাগ করে গ্রুপিং করা যায়।

 ড্র-য়ের মূলসূত্র

একই গ্রুপের দুটি দল লিগ পর্যায়ের পর ফাইনালের আগে আর মুখোমুখি হবে না। কিন্তু মনে করে দেখুন, ২০০২ সালের বিশ্বকাপে ব্রাজিল আর টার্কি একই গ্রুপে ছিল, আবার তারা সেমি-ফাইনালে মুখোমুখি হয়েছিল। এটা কীভাবে সম্ভব? সেবার পুরো ৩২টা দলকে আগেই নির্দিষ্ট শর্ত সাপেক্ষে দুই ভাগে ভাগ করে ফেলা হয়েছিল। প্রতি ভাগের চ্যাম্পিয়ন ফাইনালে উত্তীর্ণ হয়েছিল।যে-ভাগে ব্রাজিল ও টার্কি ছিল, ভেবে দেখুন, ব্রাজিল ও টার্কি ঐ ভাগেরফাইনালের আগে কিন্তু আর মুখোমুখি হয় নি।

 বর্তমান বিশ্বকাপের ড্র ৬ ডিসেম্বর ২০১৩-তে অনুষ্ঠিত হয়েছিল। এ ড্র কীভাবে করা হয়েছিল, চলুন সংক্ষেপে তা দেখা যাক।

অক্টোবর ২০১৩ মাসে ফিফা রেঙ্কিং এর শীর্ষ ৭ দল এবং স্বাগতিক ব্রাজিলসহমোট ৮টি দলকে গ্রুপ শীর্ষদল বা ‘সিড’ (Seed) হিসাবে নির্বাচন করা হয়। ১ম ৭টি দল ছিল যথাক্রমে স্পেন, জার্মানি, আর্জেন্টিনা, কলম্বিয়া, বেলজিয়াম, উরুগুয়ে ও সুইজারল্যান্ড। ফিফা রেঙ্কিং এর ১১ নম্বরে থাকা ব্রাজিলকে নিয়মানুযায়ী ১ নম্বর ‘সিড’ হিসাবে ধরা হয় (স্বাগতিক হিসাবে)।

৩২টি দলকে সমান ৮ ভাগে ভাগ করে ৮টি পাত্রে রাখা হয়।

১। সিডভুক্ত আটটি দলকে রাখা হয় প্রথম পাত্রে।

২। আফ্রিকা ও সাউথ আমেরিকার ৭টি দল, যথাক্রমে আলজেরিয়া, ক্যামেরুন, অইভরিকোস্ট, ঘানা, নাইজেরিয়া, চিলি ও ইকুয়েডরকে রাখা হয় ২য় পাত্র । ৪নম্বর পাটরে ছিল ইউরোপের ৯টি দল। সেখান থেকে এ্যাট রেনডম তুলে আনা হয়একটি দলকে (ইটালি) এবং সেটিকে রাখা হয় ২ নম্বর পাত্রে। তাহলে ২ নম্বরপাত্রে মোট ৮টি দল হলো।

৩। ৩ নম্বর পাত্রে এশিয়া ও নর্থ আমেরিকার ৮টি দলকে ফেলা হয়। দলগুলো হলোঃ

  • অস্ত্রেলিয়া
  • ইরান
  • জাপান
  • সাউথ কোরিয়া
  • কোস্টা রিকা
  • হন্ডুরাস
  • মেক্সিকো
  • ইউনাইটেড স্টেট

৪। ৪ নম্বর পাত্রে ইউরোপের ৮টি দল থাকে (একটি দলকে উঠিয়ে ২ নম্বর পাত্রে রাখা হয়েছে- ইটালি)। দলগুলো হলোঃ

  • বসনিয়া এবং হারজগভিনা
  • ক্রোয়েশিয়া
  • ইংল্যানড
  • ফ্রান্স
  • গ্রীস
  • নেদারল্যান্ড
  • পর্তুগাল
  • রাশিয়া

দলগুলো যাতে প্রতি মহাদেশের দলগুলোর সাথে যথাসম্ভব সমভাবে ভাগ হয়ে মিশ্রিত হয়, সেই চেষ্টা করা হয়, এবং একই গ্রুপে যাতে ইউরোপের তিনটি দেশ না পড়ে তার জন্যও বিশেষ কৌশল অবলম্বন করা হয়।

খেয়াল করে দেখুন, সিডভুক্ত ৮টি দলের মধ্যে ৪টি সাউথ আমেরিকা এবং বাকি ৪টি ইউরোপের দল।

আটটি সিড টিমের মধ্যে ব্রাজিলকে গ্রুপ ‘এ’-তে রাখা হয়। এরপর ১ নম্বর পাত্র থেকে একে একে বাকি সাতটি টিমকে তুলে যথাক্রমে বি, সি, ডি, ই, এফ, জি ও এইচ গ্রুপের শীর্ষ দল হিসাবে রাখা হয়।

wc2014
এ- ব্রাজিল
বি- স্পেন
সি- কলম্বিয়া
ডি- উরুগুয়ে, ইটালি*
ই-সুইজারল্যান্ড
এফ- আর্জেন্টিনা
জি- জার্মানি
এইচ- বেলজিয়াম

(*সিডভুক্ত চারটি সাউথ আমেরিকার দলকে আবার আরেকটি পাত্রে রাখা হয়। তা থেকে লটারি করে একটি দেশের নাম তোলা হয়। তাতে বের হয়ে আসে উরুগুয়ে। এই উরুগুয়ের সাথে ২ নম্বর পাত্রে রাখা ইউরোপিয়ান দল ইটালিকে রাখা হয়।)

এরপর দ্বিতীয় পাত্রে সাতটি দলকে লটারি করে একে একে তোলা হয়। প্রথমটি তুলে এ গ্রুপে, দ্বিতীয় বি গ্রুপে, এভাবে আট নম্বরটি এইচ গ্রুপে রাখা হয়। (ইটালিকে আগেই উরুগুয়ের গ্রুপে ফেলা হয়েছিল)।

একইভাবে তৃতীয় ও চতুর্থ নম্বর পাত্র থেকে ক্রমিকভাবে দলগুলো তুলে ‘এ’ থেক ‘এইচ’ গ্রুপে তোলা হয়।

গ্রুপের লটারি এভাবেই শেষ হলো।
কাজ আরেকটু বাকি ছিল।

প্রতি গ্রুপের সিডভুক্ত দলটি টিম-১ হবে। প্রতি গ্রুপের বাকি তিনটি টিমের মধ্যে ড্র করে অবস্থান নির্ণয় করা হয়। উদাহরণ স্বরূপ, গ্রুপ এ-এর শীর্ষ দল ব্রাজিল, এ-১। এ গ্রুপে ড্র-টি প্রথম দলটি হবে এ‌‌-২, পরেরটি এ-৩ এবং শেষেরটি এ-৪।

এভাবে বাকিদলগুলোর মধ্যকার পজিশন নির্ণয় করা হয়।
ধাঁধা ও অংকে যারা মজা পান তারা এ সকল ড্র বা ফিকশ্চার করেও খুব মজা পাবেন বলে আমার ধারণা।

যেভাবে ফিকশ্চার তৈরি করবেন:

ড্র-এর আগেই ফিকশ্চার তৈরি করে নিতে হবে। ড্র-এর পর ক্রমিক নম্বর অনুযায়ী দলগুলোর নাম নির্দিষ্ট বক্সে বা পাত্রে ফেলে দিতে হবে।

৩২-দল টুর্নামেন্টের জন্য ৮টি গ্রুপ করাই উত্তম, অন্যথায় খেলার সংখ্যা বেড়ে যাবে। প্রথম গ্রুপকে এ গ্রুপ, ২য় গ্রুপকে বি গ্রুপ, এভাবে বাকি গ্রুপগুলোকে যথাক্রমে সি থেকে এইচ পর্যন্ত চিহ্নিত করতে হবে। আবার একই গ্রুপের ভিতর শীর্ষ বাছাইকে ১ নম্বর (এ গ্রুপের হলে এ-১, বি গ্রুপের হলে বি-১, ইত্যাদি) এবং বাকিগুলোকে যথাক্রমে ২, ৩ ও ৪ নম্বর দল হিসাবে চিহ্নিত করতে হবে (এ গ্রুপের ক্ষেত্রে এ-১, এ-২, এ-৩ ও এ-৪। বাকিগুলোও এভাবেই হবে)।

ফিকশ্চার তৈরির জন্য কয়েকটি পদ্ধতি আছে। এখানে একটি পদ্ধতি আলোচনা করা হল। এ পদ্ধতির মূলসূত্র হলো গ্রুপ লিগের পরে ফাইনাল খেলা ছাড়া একই গ্রুপের দলগুলোর মধ্যে মাঝপথে আর মুখোমুখি হবার সম্ভাবনা থাকবে না। ব্যতিক্রম হিসাবে শুরুতেই ২০০২ বিশ্বকাপের কথা উল্লেখ করা হয়েছে।

মন করা যাক, প্রতি গ্রুপের চ্যাম্পিয়ন ও রানার-আপ দল ২য় রাউন্ডে যাবে। এ প্রসঙ্গে আপনাদের স্মরণ করিয়ে দিই আগের দিনের কথা যখন ২৪টি দল খেলতো। ঐ সময়ে ২৪টি দলকে ৬ গ্রুপে ভাগ করা হতো, ১৬টি দল ২য় রাউন্ডে উঠতো। প্রতি গ্রুপের চ্যাম্পিয়ন ও রানার মিলে হতো ১২টি দল, আর ৬টি ৩য় স্থান লাভকারী দলের মধ্য থেকে সেরা ৪টি ২য় স্থান লাভকারী দল ২য় রাউন্ডে উঠবার সুযোগ পেতো।ঐ ফিকশ্চার তৈরি বর্তমানের চেয়ে অনেক বেশি জটিল ছিল। তবে গ্রুপ অব ডেথ তখন বর্তমানের মতো এত ভয়ংকর ছিল না, কেননা কোনো শক্তিশালী দল দুর্ভাগ্যক্রমে তৃতীয় স্থান লাভ করলেও সেরা চারটি তৃতীয় স্থান লাভকারী হবার আশায় শেষ পর্যন্ত খেলা ধরে রাখতো।

দ্বিতীয় রাউন্ডের জন্য এবার ফিকশ্চার নীচের মতো করে সাজানঃ

  • এ -১ বনাম বি-২
  • সি-১ বনাম ডি-২
  • ই-১ বনাম এফ-২
  • জি-১ বনাম এইচ-২

লক্ষ করুন, উপরে কোনো গ্রুপ থেকেই একটির বেশি দল উঠে আসে নি। এবার ১ম ম্যাচবিজয়ী বনাম ২য় ম্যাচবিজয়ী এবং ৩য় ম্যাচবিজয়ী বনাম ৪র্থ ম্যাচবিজয়ী ৩য় রাউন্ডে (কোয়ার্টার ফাইনাল) খেলবে। দুই কোয়ার্টার ফাইনাল বিজয়ী খেলবে সেমি-ফাইনাল। সেমি-ফাইনাল বিজয়ী খেলবে ফাইনালে। তাহলে দেখুন, এখানকার কোনো গ্রুপের অপর দলের সাথেই ফাইনালের আগে আর মুখোমুখি হবার সুযোগ থাকছে না।

চলুন দেখা যাক বাকি দলগুলোর ফিকশ্চার।

  • এ-২ বনাম বি-১
  • সি-২ বনাম ডি-১
  • ই-২ বনাম এফ-১
  • জি-২ বনাম এএইচ-১

এখান থেকেও উপরের নিয়মে কোয়ার্টার ফাইনাল ও সেমি ফাইনাল খেলার পর বিজয়ী দলটি ফাইনালে উত্তীর্ণ হবে।

এ তো গেলো ২য় রাউন্ডের ফিকশ্চার। ২য় রাউন্ডে উঠবার আগে একই গ্রুপের ফিকশ্চার কীভাবে করা হয় চলুন তা জেনে নিই। অনেক ভাবেই করা যেতে পারে, তবে সহজ পন্থাটি বলি। আগেই বলেই দলগুলোকে যথাক্রমে এ-১, এ-২, এ-৩ ও এ-৪, এভাবে সাজানো হয়।

এ-১ বনাম এ-২
এ-৩ বনাম এ-৪
এ-১ বনাম এ-৩
এ-২ বনাম এ-৪
এ-১ বনাম এ-৩

এভাবে বাকি গ্রুপের ফিকশ্চার সম্পন্ন করা হয়।

উপরোক্ত ফিকশ্চার হলো একটা সেট ফরম্যাট। প্রতিটা ম্যাচ কোন মাঠে কবে অনুষ্ঠিত হবে তা ড্র-এর আগেই ঠিক করে রাখা হয়; ড্র-এর সময় কেবল দলগুলো বসিয়ে দেয়া হয় জায়গামতো (শুরুতে যা বর্ণনা করা হয়েছে)। কখনো কখনো দর্শক চাহিদা, হোম গ্রাউন্ড ইত্যাদি বিষয় বিবেচনা করে কোনো কোনো ম্যাচের মাঠ ও সময়সূচি পরিবর্তন করা হয়ে থাকে। ক্রিকেট ওয়ার্ল্ডকাপে এ ফ্যাক্টরগুলো বেশি বিবেচনা করা হয়।

এ ছিল ড্র ও ফিকশ্চার সংক্রান্ত বিষয়গুলোর সংক্ষিপ্ত বিবরণ। এ বিষয়গুলো বুঝবার জন্য যাদের আগ্রহ আছে কিন্তু আগে জানতেন না, তারা এটা পড়ে খুব মজা পাবেন। যাদের আগ্রহ আছে এবং এ ব্যাপারে বিশদ জ্ঞান রাখেন, তারা এর উপর আরও অপশন কী কী হতে পারে তা খতিয়ে দেখবেন।
লিখাটি যাতে জটিল মনে না হয়,সেটা মাথায় রেখেই যথাসম্ভব সহজ নিয়মে ড্র আর ফিকশ্চার তৈরি করার পদ্ধতি বর্ণনা করা হয়েছে এখানে। কারো যদি ভাল লাগলে তবেই লিখাটি সার্থক।