বিশ্বের সেরা মুভি থিয়েটার গুলোর তথ্য

টিউন করেছেন Israt Liza | April 23, 2014 12:55 | পোস্টটি 961 বার দেখা হয়েছে

বিশ্বের সেরা মুভি থিয়েটার গুলোর তথ্য


মুভি বা সিনেমা দেখার অভ্যাস কম বেশি আমাদের সবারই আছে, তাই না? কিন্তু একবার ভাবুন তো সেই মুভি যদি আপনি কোন আরাম দায়ক বা সব চেয়ে আনন্দদায়ক থিয়েটার এ বসে দেখেন, তাহলে কেমন হতো আপনার অনুভূতি?

আমরা অনেকেই তো ভ্রমন বা ব্যবসার কাজে বিদেশ ভ্রমন করে থাকি, কিন্তু এই অসাধারণ সব মুভি থিয়েটার গুলোর ব্যাপারে না জানার কারনে সেই আনন্দ থেকে বঞ্চিত হই।

আসুন জেনে নেই বিশ্বের সবচেয়ে আনন্দদায়ক মুভি থিয়েটার গুলোর তথ্য..

সিনে থিসিও, এথেন্স, গ্রীস

সিনে থিসিও, এথেন্স, গ্রিস, Cine Thisio

 

১৯৩৫ সালে নির্মিত এই থিয়েটারটি খোলা আকাশের নিচে অবস্থিত। এর অপরূপ সৌন্দর্য দেখা যায় রাতের বেলা। প্রত্নতাত্ত্বিক আবেশের সাথে এর আসনগুলো বিন্যাস্ত, তাই বোধয় এটি সমীক্ষায় বিশ্বের শ্রেষ্ঠ মুভি থিয়েটার হিসেবে বিবেচিত হয়েছে। শুধু কি তাই? মালিক পক্ষ আপনাকে সব মজাদার খাবারও পরিবেশন করবে মুভি চলাকালীন সময়ে।

এ্যালামো ড্রাফট হাউস, টেক্সাস, ইউএসএ

এ্যালামো ড্রাফট হাউস,Alamo draft house

সিনেমা হলের সব থেকে বিরক্তিকর ব্যাপার হল শুরু বা মধ্য খানে কোন বিজ্ঞাপন প্রচার, বাচ্চাদের বক বকানি অথবা মোবাইল ফোনের রিংটোন। অবাক হবেন জেনে যে এগুলোর এক্টাও নেই এখানে। কিছুতেই এগুলো  চলবে না আ্যলামো ড্রাফট হাউস এ, কথা বলা যাবে না, সেল ফোন ব্যাবহার করা যাবে না, এমনকি ৬ বছরের নিচে কন বাচ্চা এখানে প্রবেশ করতে পারবে না। এই কঠোর নিয়ম গুলো যদিও অনেকে মেনে নিতে পারেনা, তবুও এটি শ্রেষ্ঠ মুভি থিয়েটার গুলোর মধে  দ্বিতীয় অবস্থানে আছে। আরও আছে সুস্বাদু খাবারের সাথে বিয়ার।মুভি দেখা ছাড়াও আরও কিছু চমৎকার ইভেন্ট আপনাকে দেখানো হবে এখানে।

রাজমন্দির থিয়েটার, জয়পুর,ভারত

রাজমন্দির থিয়েটার,raj mondir

 

এটি হল জয়পুরের সৌন্দর্যের প্রতীক, যে শহরটির যাত্রা শুরু হয়েছিল ১৮০০ শতকে, সেটিকেই যেন ফুটিয়ে তোলা হয়েছে এর মাধ্যমে। এই হল্টির স্তাপত্য শিল্প একে বিশ্বের সেরা মুভি থিয়েটার গুলোর সারিতে নয়ে গেছে। এর স্থাপত্য, রহস্যময় নকশা এবং অপরূপ শিল্প কর্ম  নিশ্চিত আপনাকে এক স্বপ্নিল জগতে নিয়ে যাবে। তাই বোধয় এক সময় একে বলা হতো “Pride of Asia”।

 

কিনো ইন্টারন্যাশনাল, বার্লিন, জার্মানি

কিনো ইন্টারন্যাশনাল kino international

 

একসময় এটি জার্মানির সমাজতান্ত্রিক যুগে সঙ্ঘটিত  ঠাণ্ডা যুদ্ধের একটি অবশিষ্টাংশ হিসেবে পরিচিত ছিলো। তবে এখন এটি একটি সুচারু আর্ট হাউস, থিয়েটার অ বিভিন্ন অনুষ্ঠান পরিবেশনের একটি মনোরম জায়গা হিসেবে প্রসিদ্ধ। এই থিয়েটারটি বার্লিনের ঐতিহ্যবাহী এবং সুরক্ষিত পরিবেশ হিসেবে বিবেচিত। এটি এমনভাবে তৈরি করা হয়েছে যে এর দিজাইনের রদ বদল আর কখনো বদলানো যাবে না।

4DX,সিউল, দক্ষিন কোরিয়া

4DX

 

এটি বিশ্বের প্রথম 4D মুভি থিয়েটার। এখানকার মজার ব্যপার হল মুভি দেখার সময় আপনার দিকে ছুটে আসবে আপুর্ব সুন্দর সুগন্ধি, সাথে বাতাস এবং হালকা পানির চ্ছটা। ক্রীড়াকৌতুক-পার্ক টাইপের এই থিয়েটার এ অনেকেই কিছুটা অস্বস্তিতে ফেলতে পারে, হৃদ রোগী, গর্ভবতী মহিলারা এবং যাদের ব্যাক পেইন এর প্রবলেম আছে, তাঁদের ঠিক হবে না এখানে যাওয়া।

আপ লিঙ্ক এক্স, টোকিও, জাপান

আপ লিঙ্ক এক্স

জাপানের সবচেয়ে ছোট মুভি হল, মাত্র ৪০টি আসন রয়েছে এর। এর বড় বৈশিষ্ট্য হল আসন গুলোকে  “social seating” হিসেবে তৈরি করা হয়েছে। ১০ ধরনের আসন গুলোকে ফ্লোরের সাথে গেঁথে না রেখে এমনভাবে তৈরি করা হয়েছে যে আপনি চাইলে যেকোন দিকে আসনটি মুভ করাতে পারবেন, বা যেদিক থেকে আপনার মুভি দেখতে সুবিধা হবে, সেদিকে যেতে পারবেন।

ইলেক্ট্রা সিনেমা

ইলেক্ট্রা

আরাম আয়েশে মুভি দেখার সব সুযোগ পাবেন এখানে। আরাম দায়ক সোফাতে যদি আপনি ভালো না লাগে, তাহলে রয়েছে আপনার জন্যে আরও আরাম দায়ক বিছানা। তবে শুয়ে দেখলে একটিই আসুবিধা, তা হল একটু কষ্ট হবে মুভি দেখতে। কারণ শুয়ে দেখতে গিয়ে আপনাকে ৯০ ডিগ্রী ঘাড় ঘুড়িয়ে দেখতে হবে, এই যা একটু কষ্ট।