সময় উপযোগী প্রশিক্ষণের মাধ্যমে একজন ব্যক্তির ক্যারিয়ার গঠনে ক্রিয়েটিভ আইটির ভূমিকা অতুলনীয় এবং অনস্বীকার্য।

amena akter

আমি আমেনা আক্তার, এসইও (SEO) এবংএসএমএম (SMM) এক্সপার্ট। কাজ করে যাচ্ছি অনলাইন মার্কেটপ্লেসে। সম্প্রতি গ্রাফিক্স ডিজাইন এর কোর্স সম্পূর্ণ করেছি ক্রিয়েটিভ আইটি থেকে।
টিউন করেছেন amena akter | December 20, 2014 06:17 | পোস্টটি 1,586 বার দেখা হয়েছে

“Build your Career, Discover your creativity” এই স্লোগানকে ধারণ করে সামনের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে ক্রিয়েটিভ আইটি। সময় উপযোগী প্রশিক্ষণের মাধ্যমে এই প্রতিষ্ঠান যে সুনাম অর্জন করেছে তার জন্য প্রথমেই স্বরন করতে পারি জনাব মনির হোসেনকে। যার অক্লান্ত  পরিশ্রমে  ২০০৮ সালে প্রতিষ্ঠিত হয় দেশ সেরা অন্যতম এই আইটি প্রতিষ্ঠান। সাবলীল-সুন্দর কার্যক্রমের মাধ্যমে সুনামের মধ্যে দিয়ে নিজের অবস্থান তৈরি করে নিয়েছে এই প্রতিষ্ঠান।প্রতি বছর অনলাইনে কিংবা লোকালভাবে এই প্রতিষ্ঠান তার জন্মলগ্ন থেকেই ফ্রিল্যান্সার তৈরির মাধ্যমে বেকার সমস্যা সমস্যার সমাধান করার প্রয়াসে সময় উপযোগী প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করে যাচ্ছে যাতে করে একজন প্রশিক্ষণার্থী প্রশিক্ষণে থাকা অবস্থায় অথবা প্রশিক্ষণে শেষে লোকাল কিংবা অনলাইন জগতে নিজের ক্যারিয়ার গঠন করতে পারে।ক্রিয়েটিভ আইটি এমন একটা প্রতিষ্ঠান যেটা নামে এবং তার কাজে এক। উজ্জ্বল দৃষ্টান্তস্বরূপ বলা যায় ১৩ই ডিসেম্বর বাংলাদেশ জাতীয় যাদুঘর মিলনায়তনে “Women Achievement of outsourcing” শিরোনামে বিশেষ অনুষ্ঠানে ক্রিয়েটিভ আইটি হতে কোর্স সম্পন্ন করা সেরা ১০ জন নারী ও ৫ জন পুরুষ ফ্রিল্যান্সারকে সংবর্ধনা দেওয়া হয়। সেই সাথে আরও ৪০ জন ফ্রিল্যান্সারকে শুভেচ্ছা ক্রেস্ট প্রদান করা হয়। তাহলে বুজাই যাচ্ছে এখান থেকে কোন না কোন বিষয়ে প্রশিক্ষণ নিয়ে ফ্রীলাঞ্চিং জগতে এরা নিজেদের ক্যারিয়ার গঠন করতে পেরেছে।

Creative IT
প্রশিক্ষণার্থীদের সাহায্যে ক্রিয়েটিভ আইটির হেল্প ডেস্কঃ-

ক্রিয়েটিভ আইটির হেল্প ডেস্ক ছাত্র-ছাত্রীদের যে কোন ধরনের সহযোগিতায় সদা তৎপর। এক্ষেত্রে স্মৃতি আপুর কথা বেশ মনে পরে, মিষ্টি একটা হাসি দিয়ে বলে- কি সহযোগিতা করতে পারি আপু?এই ডেস্কে বসা সব ভাই এবং আপুরা ঠিক এভাবেই আগতদের সহযোগিতা করে থাকে। যখন ফেসবুকে ক্রিয়েটিভ আইটির কোর্স সম্পর্কে তথ্য প্রচার হয়  তখন ক্রিয়েটিভ আইটির হেল্প ডেস্কে সব রকম তথ্য পাওয়া যায়।

ক্রিয়েটিভ আইটির প্রশিক্ষণ ব্যবস্থাঃ-

ক্লাসরুম এবং ল্যাবঃ- ক্রিয়েটিভ আইটির রয়েছে সুবিশাল ক্লাসরুম প্রায় ৫০-৬০ শিক্ষার্থীকে একসাথে বসে ক্লাস করতে পারে। এখানে প্রতিটা শিক্ষার্থীকে দেওয়া হয় উপযুক্ত শিক্ষা যেটা থেকে তারা পায় আশার আলো এবং আগামী দিনে পথ চলার উপায়। এই ক্লাসরুম থেকে গড়ে উঠে এক একজন দক্ষ ফ্রীলাঞ্চার। ক্লাস শেষে চর্চা করার জন্য রয়েছে একটি বিশাল ল্যাব।

শিক্ষার মানঃ-ক্রিয়েটিভ আইটিতে রয়েছে সময় উপযোগী প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা,আমার দেখা ঢাকার অনেক প্রতিষ্ঠানের মধ্যে এই প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার মান সবচেয়ে ভালো। অনেক আইটি প্রতিষ্ঠান আছে যারা একবার স্টুডেন্ট ভর্তি করাতে পারলেই তাদের কাজ শেষ। কোর্স শেষ করে তারা আর কোন ধরণের হেল্প পায় না অথচ ক্রিয়েটিভ আইটি থেকে একবার কোর্স শেষ করলেও এখান থেকে সাহায্য করা হয়।

প্রশিক্ষক সর্ম্পকে:-  জনাব মনির হোসেন গ্রাফিকস্ ডিজাইনের গুরু। ভাল প্রশিক্ষক, ব্যক্তিত্বসম্পন্ন মানুষ  এবং একজন অনুপ্ররণাকারী হিসেবে উনাকে আমার ভালো লাগে।উনি চেষ্টা করে তার মেধার পুরোটাই ছাত্র-ছাত্রীদের দিতে যাতে তারা ভাল করে শিখতে পারে।  এছাড়াও আজাদ ভাই, শাহাদাৎ হোসেন, ঈশিতা ইসলাম অমি উনাদের কাছ থেকে গ্রাফিক্স ডিজাইন শিখেছি। অনেক ভালভাবেই প্রশিক্ষণ দিয়েছেন আমাদের। এই ক্ষেত্রে শাহাদাৎ ভাইয়ের কথা না বললেই নয়, সাধ্যমত চেষ্টা করেছেন আমদের কিছু দেওয়াও জন্য, খুলে দিয়েছিলেন মনের দরজা। অসম্ভব ভালো মানুষ, ক্লাস এর বাইরেও কাজের ব্যপারে কত বিরক্ত করেছি বলার মত না। কিন্তু উনি বিরক্ত হননি বরং সমস্যা সমাধানে সাধ্যমত চেষ্টা করেছেন।এই প্রতিষ্ঠানের সবাই এত আন্তরিক যা আমি অন্য কোথাও দেখিনি।প্রতিষ্ঠানের কোন খবর আমরা যে ব্যক্তির মাধ্যমে ফেসবুক এ জানতে পাই উনি হলেন ইকরাম ভাই, এসইও এবং আর্টিকেল রাইটিং রয়েছে উনার দারুণ অভিজ্ঞতা। এখানে গ্রাফিক্স, ওয়েবডিজাইন, এস ই ও, সোসাল মিডিয়া মাকের্টিং, ইমেল মাকের্টিং সহ সব ক্ষেত্রে আছে সেরা সেরা সব প্রশিক্ষক ।

Classroom

ক্রিয়েটিভ আইটির কোর্স সমূহ:-

সময় কি চাচ্ছে,কি কাজ শিখলে, কিভাবে শিখলে সময় উপযোগী প্রশিক্ষণে দক্ষ হয়ে একজন ব্যক্তি লোকাল কিংবা আন্তর্জাতিক পর্যায়ে অনলাইনে কাজ করতে পারবে তার শিক্ষা একমাত্র এই প্রতিষ্ঠান থেকেই সম্ভব।এখানে গ্রাফিক্স ডিজাইন, ওয়েব ডিজাইন, এসইও, সোসাল মিডিয়া মাকের্টিং, থ্রিডি অ্যানিমেশন,জাভাস্ক্রীপ্ট, এসকিউএল, মোবাইল অ্যাপসইমেল মাকের্টিংসহ সময় উপযোগী সব ধরনের কোর্স আছে। এছাড়াও রয়েছে Communication English for Outsourcing(CEO) নামে ফ্রীলাঞ্চারদের জন্য একটি কার্যকরী কোর্স।

creative it courses

নারী ফ্রিল্যান্সার গঠনে ক্রিয়েটিভ আইটির ভুমিকাঃ-

বর্তমানে ফ্রিল্যান্সিং ও অনলাইন কাজের ক্ষেত্রে এগিয়ে যাচ্ছেন নারীরা। বর্তমান বিশ্বে অনলাইন ফ্রিল্যান্সারের মধ্যে ৫৮ ভাগ নারী ফ্রিল্যান্সার হলেও বাংলাদেশে মাত্র ৯ শতাংশ নারী এ কাজ করছেন। এই নারী ফ্রীলাঞ্চার গঠনে ক্রিয়েটিভ আইটি সবসময় তার গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে যাচ্ছে। ফ্রিল্যান্সিং সেক্টর থেকে পিছিয়ে পড়া দেশের নারী সমাজকে এ সেক্টরে নিয়ে আসার জন্য বিশেষ উদ্যোগ নেয়।  ক্রিয়েটিভ আইটির সম্পূর্ণ নিজস্ব অর্থায়নে ১৫০ জন নারীকে ফ্রিল্যান্সিং বিষয়ক (গ্রাফিকস এবং ওয়েব ডিজাইন) প্রশিক্ষণ দিয়ে স্বাবলম্বী হতে সহযোগিতা করা হয়।

women scholarship batch

“Women Achievement of outsourcing” অনুষ্ঠান সম্পর্কেঃ-

গত ১৩ ডিসেম্বর, ২০১৪ইং তারিখে বাংলাদেশ  জাতীয় যাদুঘরের প্রধান মিলনায়তনে ক্রিয়েটিভ আইটি লিমিটেডের পক্ষ হতে যারা স্কলারশীপ পেয়ে কোর্স সম্পন্ন করেছেন, তাদের জন্য সার্টিফিকেট বিতরণ অনুষ্ঠান হয়ে গেল। উক্ত অনুষ্ঠানে সেরা ১০ জন নারী ও ৫ জন পুরুষ ফ্রিল্যান্সারকে সংবর্ধনা দেওয়া হয়। সেই সাথে আরও ৪০ জন ফ্রিল্যান্সারকে শুভেচ্ছা ক্রেস্ট প্রদান করা হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন-গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের মাননীয় প্রতিমন্ত্রী জনাব জুনাইদ আহমেদ পলক। বিশেষ অতিথি, তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি বিভাগের মাননীয় সচিব, শ্যাম সুন্দর শিকদার। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন, বাংলাদেশ হাই-টেক পার্কে ব্যবস্থাপনা পরিচালক, হোসনে আরা বেগম(এনডিসি)। উপস্থিত ছিলেন ইল্যান্স-ওডেস্ক বাংলাদেশের কান্ট্রি ম্যানেজার সাইদুর মামুন। ক্রিয়েটিভ আইটি ব্যবস্থাপনা পরিচালক মনির হোসেন এবং সফল নারী উদ্যোগতা ইমরাজিনা খান।

women achievement in outsourcing

ক্যারিয়ার গঠনে ক্রিয়েটিভ আইটির সাথে হাই-টেক পার্কের  স্কালারশীপ কার্যক্রমঃ-

হাই-টেক পার্কঃ- একুশ শতকের বিশ্বে অনেক দেশই তাদের অর্থনীতিকে প্রযুক্তিনির্ভর করে গড়ে তুলেছে। বাংলাদেশও তথ্য-প্রযুক্তি ভিত্তিক সমাজ গড়ে তুলতে হাইটেক পার্ক নির্মাণ করছে। প্রধানমন্ত্রীর তথ্যপ্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয় এ বিষয়ে বলিষ্ঠ ভূমিকা রাখছেন। এ হাইটেক পার্কে শুধু সফটওয়্যার, হার্ডওয়্যার, আউটসোর্সিং, বায়োটেকনোলজি প্রভৃতি প্রযুক্তির ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠবে। ক্রিয়েটিভ আইটির এ মহৎ উদ্যোগে সহযোগীতা করার জন্য এবং ফ্রিল্যান্সিং এর মাধ্যমে বেকার সমস্যা সমাধানে একপর্যায়ে বাংলাদেশ সরকারের হাইটেক পার্ক এগিয়ে আসে।

স্কালারশিপঃ- হাইটেক পার্ক এবং ক্রিয়েটিভ আইটির যৌথ উদ্যোগে ৮০০জন গ্রাজুয়েটকে (পুরুষ এবং নারী) ফ্রিল্যান্সিং বিষয়ক প্রশিক্ষণ দেওয়া হয় এবং এখনও চলমান। ক্রিয়েটিভ আইটি তে সব সময় কিছু না কিছু স্কালারশিপ থাকেই, হয় সেটা সরকারের হাই-টেক পার্কের আওতাধীন কিংবা ক্রিয়েটিভ আইটির নিজেস্ব কোন স্কালারশিপ। মেয়েদের জন্য রয়েছে গ্রাফিক্স ডিজাইনের ওপর স্কালারশিপ।

গত ১বছরে ক্রিয়েটিভ আইটি লিঃ এর স্কলারশীপ প্রোগ্রামের কিছু সংক্ষিপ্ত রিপোর্টঃ-

১। ক্রিয়েটিভ আইটির সম্পূর্ণ নিজস্ব অর্থায়নে স্কলারশীপ প্রোগ্রামের আওতায় সর্বমোট ১৮০ জনকে ফ্রি কোর্স করানো হয়।
- প্রফেশনাল গ্রাফিকস ডিজাইন: ১২০ জন
- রেসপন্সিভ ওয়েবডিজাইনঃ ৩০ জন
- অ্যাডভান্স এসইওঃ ৩০ জন
এর মধ্যে গ্রাফিকস এবং ওয়েবডিজাইন কোর্সটির স্কলারশীপ (১৫০ জন) ছিল শুধু মাত্র নারীদের জন্য।

২। বাংলাদেশ সরকারের হাইটেক পার্ক ও ক্রিয়েটিভ আইটি যৌথ উদ্যোগে স্কলারশীপ প্রোগ্রামের আওতায় এ বছরে ৮০০ জনকে এখন পযন্ত বিভিন্ন আইটি কোর্সে প্রশিক্ষিত করে।
- গ্রাফিকস ডিজাইনঃ ৫০০ জন
- অনলাইন মার্কেটিং: ১৫০ জন
- নেটওয়ার্কিং :১৫০ জন

ক্রেডিটঃ- স্কালারশিপের এই অংশটুকু ক্রিয়েটিভ আইটির ফেসবুক থেকে নেওয়া।

scholarship

ক্রিয়েটিভ আইটির প্রশিক্ষণার্থী  হিসেবে ধন্য আমিঃ- 

আমি এসইও (SEO) এবং এসএমএম (SMM) এক্সপার্ট। কাজ করে যাচ্ছি অনলাইন মার্কেটপ্লেসগুলোতে। বর্তমানে ওডেক্স, ইল্যান্স, ফ্রিল্যান্সার.কম, পিপলপারআওয়ার, গুরু.কম, ফাইভারসহ প্রায় সকল মার্কেটপ্লেসে রয়েছে স্বরব পদচারনা। এছাড়াও সরাসরি কাজ করেছি অনেক ক্লায়েন্ট এর সাথে। এসইও কাজ করতে গিয়ে গ্রাফিক্স ডিজাইন এর ফটোশপ এর কাজের প্রয়োজনীয়তা অনুভব করায় গ্রাফিক্স ডিজাইন এর কোর্স সম্পূর্ণ করেছি ক্রিয়েটিভ আইটি থেকে। আশা করছি এর মাধ্যমেও আয় করতে পারবো।

১৪/১১/২০১৪তারিখে দেশে প্রথমবারের মতো অনলাইন পেশাজীবীদের নিয়ে সম্মেলনের আয়োজন করে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ভিত্তিক গ্রুপ বাংলাদেশ ইন্টারনেট প্রফেশনালস কমিউনিটি (বিআইপিসি)। বিআইপিসি প্রোগ্রামে বক্তা এবং নারী ফ্রিল্যান্সার হিসেবে পুরস্কৃত হয়েছি। ১৩/১২/২০১৪তারিখে রাজধানীর জাতীয় জাদুঘর মিলনায়তনে হাইটেকপার্ক ও ক্রিয়েটিভ আইটির যৌথ আয়োজনে ‘ফ্রিলান্সিংয়ে বাংলাদেশের নারীদের সাফল্যের স্বীকৃতি প্রদান’ (Women’s Achievement in Outsourcing) অনুষ্ঠানে সেরা ১০জন  নারী ফ্রীলাঞ্চার এর মধ্যে একজন হিসেবে সংবর্ধিত হয়েছি।
Amena Akter

ব্যক্তিগত মতামতঃ- হাইটেক পার্ক এবং ক্রিয়েটিভ আইটির যৌথ উদ্যোগে নারীদের জন্য গ্রাফিক্স ডিজাইনের ওপর স্কলারশীপ পেয়ে এই প্রতিষ্ঠানের একজন প্রশিক্ষণার্থী হতে পেরে নিজেকে খুবই ধন্য মনে করছি। একটা আফসোস মনের মধ্যে আছে ২০১১ সালে কেন আমি এই প্রতিষ্ঠান সম্পর্কে জানলাম না?  তাহলে এসইও এর কোর্সটা ভালভাবে এখান থেকে সম্পূর্ণ করতে পারতাম। কাজ শিখার জন্য আমি কয়েকটা  আইটি  প্রতিষ্ঠানে গিয়েছিলাম কিন্তু কোথাও ভালো সাপোর্ট পাই নি। শুধুই সময়, শ্রম আর টাকা নষ্ট করেছি।

এই প্রতিষ্ঠানের কার্যক্রম আমার খুব ভালো লেগেছে কেননা সময় উপযোগী প্রশিক্ষণের মাধ্যমে একজন ব্যক্তিকে ইনকাম করার যাবতীয় খুঁটিনাটি বিষয় হাতে-কলমে শিখানো হয়। ক্যারিয়ার গঠনে ক্রিয়েটিভ আইটির ভূমিকা আসলে কয়েকটা লাইনে লিখে বুজানো সম্ভব না। অনেক প্রতিষ্ঠান আছে যারা ফ্রীলাঞ্চিং এর নামে ব্যবসা করে টাকা কমানো যাদের উদ্দেশ্য ।কিন্ত ক্রিয়েটিভ আইটির উদ্দেশ্য টাকা কামানো নয়,এর উদ্দেশ্য হচ্ছে একজন ব্যক্তির ক্যারিয়ার গঠনে উত্তম প্রশিক্ষণের মাধ্যমে সহযোগিতা করা এবং সব ধরনের দিক নির্দেশনা দেওয়া। অনেক অনেক ধন্যবাদ ক্রিয়েটিভ আইটিকে।

 

 

  • http://www.mdnazmulislam.com/ Md Nazmul Islam

    একজন নতুন শিক্ষার্থী হয়তো বুঝতে পারে না কোন প্রতিষ্ঠান ভালো, কারা ভালো সাপোর্ট দেয়। #Amena_Akter এর কথায় সেটা স্পষ্ট হয়ে উঠেছে। উনার আফসোসটা দেশের বেশির ভাগ শিক্ষার্থীই করে থাকে যারা ভালো প্রশিক্ষনের জন্য বিভিন্ন ট্রেনিং সেন্টারে ভর্তি হয়ে অনেকটা প্রতারিত হন বা বিমুখ হয়ে যান। ধন্যবাদ মনির হোসেন, শাহাদাৎ হসেন, ইকরাম ভাই কে সর্বোপরি ক্রিয়েটিভ আই টি পরিবার কে এবং আমেনা আক্তার কে।

  • habibripon

    বর্তমানে দেশ সেরা অন্যতম আইটি প্রতিষ্ঠান ক্রিয়েটিভ আইটি। এখান থেকে প্রতিনিয়ত বের হচ্ছে নুতন নুতন ফ্রীলাঞ্চার। এই প্রতিষ্ঠানের প্রশিক্ষণ ব্যবস্থা সময় উপযোগী এবং কর্মমুখী। এই আর্টিকেল টি পরে ভালো লাগলো । আমার ছোট বোনের ইচ্ছা গ্রাফিক্স ডিজাইন আর কাজ শিখে বাসায় বসে ইনকাম করার। আমি চাই ক্রিয়েটিভ আইটি থেকে হাই- টেক পার্কের স্কলারশীপের আওতায় গ্রাফিক্স ডিজাইন এর একটি কোর্স সম্পূর্ণ করুক। কবে থেকে নুতন ব্যাচ শুরু হবে কেউ বলতে পারেন? জানালে উপকৃত হবো। অনেক অনেক ধন্যবাদ ক্রিয়েটিভ আইটিকে।

  • Rumi Akter

    এই পোস্টটি পরে খুব অনুপ্রাণিত হলাম। ফ্রীলানিং এর প্রতি আগ্রহ বেড়ে গেল। আমি লালমাটিয়া মহিলা কলেজ থেকে অনার্স শেষ করেছি দুই বছর আগে। আমি কি হাই- টেক পার্কের স্কলারশীপের আওতায় গ্রাফিক্স ডিজাইনে ভর্তি হতে পারবো ক্রিয়েটিভ আইটিতে?

  • Maria Akter Jesi

    This Article really inspiration for Us Specially Women. I want to be a good Freelancer like Amena Akter. I want to complete SEO Course From Creative IT Institute under Hi-Teck Park Scholarship Program.Many Many Thanks Creative IT for Provides Your Good and effective Services. And also thanks Genesisblogs for submit useful all article.

  • Lubna Akther

    এই প্রবন্ধ টা পড়ে আমার অনেক ভালো লেগেছে। আমি তুলারাম সরকারী কলেজ থেকে অনার্স সম্পূর্ণ করেছি, নারায়ণগঞ্জে থাকি। ক্রিয়েটিভ আইটি থেকে ওয়েব ডিজাইন এর কোর্স করতে চাচ্ছি, নারায়ণগঞ্জে ক্রিয়েটিভ আইটির কোন ব্রাঞ্চ আছে কিনা জানালে উপকৃত হবো। এই প্রতিষ্ঠান সম্পর্কে আমি জেনেছি কিন্ত এত দূর থেকে এসে ক্লাস করা সম্ভব না।

  • Md Sohel Rana

    Excellent Post.This Article will be Inspiration for New Freelancer.

  • http://www.amenaakter.com/ Amena Akter

    রুমি আক্তার, মারিয়া আক্তার জেসি এবং হাবিব রহমান আপনারা ক্রিয়েটিভ আইটির কোর্স সম্পর্কে জানার জন্য এখানে যোগাযোগ করতে পারেন।

    ঠিকানাঃ-
    Momtaz Plaza (4th floor)
    (Opposite of Labaid Hospital)
    House#7, Road#4
    Dhanmondi, Dhaka, Bangladesh
    ওয়েবসাইট- http://www.creativeit-inst.com/
    ফেসবুক গ্রপঃ- https://www.facebook.com/groups/creativeit/

  • http://www.amenaakter.com/ Amena Akter

    লুবনা আক্তার আমার জানা মতে নারায়ণগঞ্জে ক্রিয়েটিভ আইটির কোন ব্রাঞ্চ নাই ।